পাশে থাকবো ইনশাল্লাহ

অন্যান্য বিবিধ রাজনীতি সারাদেশ

মো. নিজাম উদ্দিন খান নিলু : আসসালামু আলাইকুম। বিধ্বংসী করোনার ছোবলে বিমর্ষ হয়ে আমরা ক্রমেই কোন ঠাসা হয়ে পড়ছি। প্রানঘাতী ও মারাত্বক ছোঁয়াচে এ জীবানুর প্রাদুর্ভাব ও সংক্রমন প্রতিরোধে গোটা বিশ্বের ন্যায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার অবিচল সুদৃঢ় সংগ্রামী শক্তি ও মনোবল নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের প্রতিটি দপ্তর প্রানপন প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। মহান সৃষ্টিকর্তার অপার দয়া ও করুণায় হয়তোবা আমরা অচিরেই এ নিঁকষ ছোবল থেকে রক্ষা পাবো, ইনশাল্লাহ!

নড়াইল জেলার প্রতিটি মানুষের চূড়ান্ত আস্থা ও ভালোবাসার প্রানপুরুষ ও নড়াইল ২ আসনের মাননীয় সাংসদ জনাব মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা মহোদয়ের সুবিচক্ষন, সমন্নিত মানবিক ও আন্তরিক নির্দেশনায় জেলার সুযোগ্য জেলা প্রশাসন ও অদম্য পুলিশ প্রশাসন দিন রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে আমাদেরকে রক্ষা করতে নিয়োজিত রয়েছেন।
একেরপর এক দূর্যোগ মহামারীর ক্ষত পুরণে গোটা প্রশাসনের পাশাপাশি চিকিৎসকবৃন্দ, শত স্বেচ্ছাসেবী ও হাজারো নেতা কর্মী নির্ঘুম শ্রম নিবেদন করছেন।
আকষ্মিক ক্রমানুক দূর্যোগে বিহব্বল এ সময়েও এক শ্রেনীর কুচক্রী স্বার্থন্বেসী চক্র অমানবিকতার ঝান্ডা তুলে সমাজে নিজেদের বিচ্যুত আদর্শের বীজ বপনে সক্রিয় থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। নড়াইলে এ দূর্যোগ মূহুর্তেও প্রশাসনের ব্যস্ততার সুযোগ নিয়ে ঘটে যাওয়া কিছূ আধাঁরের প্রতিচ্ছবি দেখেছি কয়েকটি স্থানে। অমানবিক কিছূ হায়েনাদের দাঙ্গা- হাঙ্গামা- সোরগোল ও বর্বরোচিত হত্যার মতো কিছূ অনাকাংক্ষিত লজ্জাস্কর পরিনতির।

এমন দূর্যোগ মূহূর্তে বিচ্ছিন্নভাবে ঘটে যাওয়া এসব ঘটনা আমাদেরকে যেমন শোকাহত করেছে, তেমনি আমরা বিব্রত হয়েছি, জাতির কাছেও আমরা লজ্জিত হয়েছি।
চরম কোন রাজনৈতিক পরিস্থিতি বা উষ্কানী ছাড়াই ঘটে যাওয়া এসব ন্যাক্কারজনক ঘটনার মূল উদ্যেশ্য হলো আমাদের সমসাময়িক সুদৃঢ় ও সম্পৃতিময় প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক কাঠামোকে বিব্রত করে সম্পর্কের অবনতি ঘটিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তোলা।
আমরা জেলার নিয়মিত প্রশাসনিক তৎপরতার পাশাপাশি করোনা দূর্যোগে মাননীয় এমপি মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা মহোদয়ের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের গর্বিত সহযোগীতা ও অবদানের বিষয়ে নিঃসন্দেহে অবগত রয়েছি। নিজেদের জীবনের পরোয়া না করে সাধারণ মানুষের জন্য তাঁদের যুগান্তকরী অবদান আমাদেরকে চির ঋনী করেছে।
তাঁদের সহযোগী হিসাবে আমরা সক্রিয় রাজনৈতিক নেতা কর্মীগনও নানামুখী সহযোগীতায় সরব রয়েছি।
এই ব্যস্ততম সুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্থানীয় ও বহিরাবস্থিত কিছু স্বার্থন্বেসী মহল নানাভাবে খুন লুট দাঙ্গা হাঙ্গামার মতে এসব জঘন্যতম কর্মকান্ডকে প্রশাসনের ব্যার্থতা ও আওয়ামী নেতা কর্মীদের সম্পৃক্ততা নিশ্চিত করতে সুকৌশলী প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছে।
আমি বিশ্বাস করি অতি দ্রুততম সময়ে এসব কুচক্রীরা চিহ্নিত হবে, আইনের জালে ধরাশায়ী হবেই।
তবে, নড়াইলের পুলিশ সুপার মহোদয় সহ সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দা সংস্থার সম্মানিত সদস্যগনকে এদের চিহ্নিত করনের বিষয়ে আরো বেশী উদ্যোগী হতে অনুরোধ করছি, কারণ এ লজ্জা শুধু আপনাদের নয়, আমাদের জন্যও এটি এক অশনি বার্তা!
আমরা জেলার আওয়ামী নেতা কর্মীগনও মানুষের বিপদে আপদে নিজেদের স্বার্থ ভূলে সবসময় শান্তি ও সৌহার্দের বাতি প্রজ্জ্বলিত রাখতে তৎপর থাকি। কোন ক্রমেই যেন বিনা অপরাধ বা সম্পৃক্ততায় কোন সাধারণ মানুষ যেন সন্দিগ্ধ তালিকার কষাঘাতে আহত হয়ে আর্তনাদ না করে সেদিকেও সতর্ক থাকা বাঞ্চনীয়।
প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে তাদেরকে যথাযথ কর্মফল ভোগে আমরা আওয়ামী লীগের ত্যাগী পরীক্ষিত ও শান্তিপ্রিয় সকল নেতা কর্মী সর্বদা আপনাদের পাশে বিশ্বস্ত শুভাকাংক্ষী- সহদর বেশে ছিলাম, আছি ও থাকবো ইনশাল্লাহ! জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।