কৃষি কাজে মনোযোগী হতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

অন্যান্য বিবিধ রাজনীতি সারাদেশ

করোনাত্তোর বিপর্যয় উত্তরণে ক্ষুদ্র প্রয়াস

 

মো. নিজাম উদ্দিন খান নিলু : আসসালামু আলাইকুম। আজ আমি আপনাদের সাথে একটি পরিকল্পনা সম্পর্কে আলোচনা ও আপনাদের মতামত প্রত্যাশা করছি। কোভিড-১৯ এর প্রভাবে গোটা বিশ্বের ন্যায় আমরাও নিজেদের সুরক্ষা বিবেচনায় দীর্ঘকাল যাবত পেশাগত দ্বায়িত্ব থেকে দুরে থেকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করছি। দীর্ঘদিনের রাষ্ট্রীয় ছূটি ও ব্যাক্তিগত আয়স্থিমিত থাকার পাশাপাশি সুবিশাল জনগোষ্টীর জন্য জরুরী ত্রান, চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে গিয়ে রাষ্ট্রীয় কোষাগারের পাশাপাশি আমাদের শ্রমজীবি ও পেশাজীবি মানুষ ব্যপক অর্থনৈতিক মন্দায় উপনিত হয়েছি, যা অতি সন্নিকটে হয়তো আরো ভয়াবহ রুপ ধারন করতে পারে! সুতরাং চলমান ও অনাগত অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় আমাদেরকে রাষ্ট্র ও ব্যাক্তি উদ্যোগে এখনই অতি তৎপর হতে হবে। সমসাময়িক কর্মস্থবিড়তা, আলস্য, পরনির্ভরতা, অনিহা বা অবহেলা আমাদেরকে পৌছে দিতে পারে করোনা দূর্যোগের চাইতেও ভয়াবহ এক পরিস্থিতিতে! যেখানে কেউ কাউকে সহযোগীতা করার থাকবে না, ক্ষুধা দারিদ্রতা আর বেকারত্ব আমাদের সবল শরীরের মাংশ ভেদ করে পাঁজড়ের হাড়কে উন্মোচিত করবে! কোটি মানুষ অভাব আর দারিদ্রতার নির্মম ছোঁবলে নিজের মৃত্যুকে আলিঙ্গনের অপেক্ষায় হাহাকার করবে! অনাগত এ অর্থনৈতিক সংকট মোবাবিলার এখনই সময়। আসুন আমরা নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রকে আরো গতিশীল করে উপার্জনের পথকে বিস্তৃত ও প্রশস্ত করি। নিজেদের নৈমিত্তিক শ্রমকে আরো গতিশীল করি। আমাদের যাদের আবাদী জমি রয়েছে সেখানে আবাদী কর্মকান্ড বেগবান করার পাশাপাশি অনাবাদী পতিত জমিতে সবজি চাষ করি। যেখান থেকে নিজেদের পুষ্টি ও অর্থের প্রয়োজন মিটিয়েও বাড়তি আয়ের উৎস সৃজন করা সম্ভব। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সুযোগ্য সভানেত্রী ইতিমধ্যেই কৃষি কাজে অধিকতর মনোযোগী হতে সকলের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন, কৃষিকাজে উৎসাহ প্রদানে ঘোষনা করেছেন চমকপ্রদ ও আলোকিত কৃষি প্রনোদনার। নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমি জেলার কর্মহীন ও নিম্নআয়ের নেতা কর্মীদের জন্য একটি পরিকল্পনা গ্রহন করেছি যেটি নৈমিত্তিক সহ আগ্রহমূলক সৈখিন কৃষিকাজে সকলকে উৎসাহীত করতে পারবে বলে মনে করি। আমি নড়াইল জেলার সকল আওয়ামী নেতা কর্মীদের মধ্যে উৎসাহমূলক উৎপাদন ও আবাদী প্রতিযোগীতার উদ্যোগ গ্রহন করতে যাচ্ছি, যেখানে জেলার সকল অঞ্চলব্যাপী নেতা কর্মীগন তাদের গৃহ আঙ্গিনা, ছাদ বা অনাবাদী পতিত জমিতে নিজ উদ্যোগ ও তত্বাবধায়নে সমন্বিত সবজি চাষ, হাঁস, মুরগী, গরু, ভেড়া, ছাগল, টার্কি, কবুতর বা গৃহপালিত পশু পাখি লালন পালন ও পরিচর্যা, পতিত ডোবা, পুকুর বা জলাশয়ে মৎসচাষ করবেন এবং তাদের উদ্যোগ সম্পর্কে ছবি বা বিস্তারিত তথ্য সহ আমাদেরকে অবগত করবেন। জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক পরিদর্শন টিম নিদ্রিষ্ট সময়ে সেসব আবাদস্থল পরিদর্শন করে শ্রেনী অনুযায়ী মূল্যায়ন করবেন। আমরা প্রাপ্ত তথ্য ও মূল্যায়ন বিচার বিশ্লেষন সাপেক্ষে নড়াইলের কিংবদন্তী প্রানপুরুষ জনাব মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা (এমপি) মহোদয় সহ সম্মানিত ও বিজ্ঞ প্যানেলের মাধ্যমে জেলার তিনটি উপজেলা থেকে সর্বমোট ৩০ জন “সৌখিন কৃষি উদ্যোক্তাকে” বিজয়ী হিসাবে চিহ্নিত করে যথাসাধ্য সম্ভব পুরস্কৃত, সম্মানিত ও প্রয়োজনীয় সহযোগীতা করবো। আশা করছি আগামী কয়েকদিনের ভিতরেই আমরা এ বিষয়ে একটি সুস্ঠ রূপরেখার মাধ্যমে চূড়ান্ত পদক্ষেপ গ্রহন করে সর্বস্তরের নেতা কর্মীদের মাঝে প্রচার প্রচারনামূলক কর্মকান্ড শুরু করবো, ইনশাল্লাহ! মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মান্যবর সভানেত্রীর নির্দেশের আলোকে দেশকে করোনাত্তোর বিপর্যয় থেকে উত্তরনের ক্ষুদ্র এ প্রয়াস সম্পর্কে আপনাদের মতামত প্রত্যাশা করছি। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।