গালফ সার্ভিসেস’র বিরুদ্ধে অপপ্রচার

রাজধানী

নিজস্ব প্রতিবেদক : গালফ সিকিউরিটি সার্ভিসেস ও তার ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবিএস খান স্বপনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন গণমাধ্যমে অসত্য ও বানোয়াট অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির কতৃপক্ষ। শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্র্টস ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তথ্য প্রমাণাদিসহ বক্তব্য উপস্থাপন করেন গালফ সিকিউরিটি সার্ভিসেস ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবিএস খান স্বপন।
তিনি আরো জানান, আল-আরাফাত সার্ভিসেস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বেলায়েত হোসেন ও জনশুমারি ও গৃহ গণনা ২০২১ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. জাহিদুল হক সরদার, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এর প্রকৃত দূর্ণীতির ঘটনা আড়াল করার জন্য তারা সাংবাদিকদের অসত্য তথ্য দিয়ে এই উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে উক্ত অসত্য সংবাদটি প্রকাশ করেছেন।
ঘটানার সত্যতা তুলে ধরে তিনি জানান, গত ১৫ জানুয়ারি ২০২০ইং তারিখে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এর জনশুমারি ও গৃহ গণনা ২০২১ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক জনাব, জাহিদুল হক সরদার আউটসোর্সিং পদ্ধতি ডাটা এন্ট্রি অপারেটর, ড্রাইভার, এমএলএসএস নিয়োগের টেন্ডার আহবান করেন এবং আমরা গত ২৭ জানুয়ারি সিডিইউল ক্রয় করি। পরবর্তীতে দেখতে পারলাম সিডিইউলের টেন্ডার ডাটা সিট এর সেকশন-২ এ পক্ষপাতমুলক শর্ত দিয়েছেন যাতে বিশেষ কোন প্রতিষ্ঠানকে সুবিধা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন।
এবিএস খান স্বপনে বলেন, আমরা গত মার্চ থেকে বিভিন্ন সূত্রে অবহিত হয়েছি যে, মোঃ জাহিদুল হক সরদার, উক্ত প্রকল্প পরিচালক উল্লেখিত টেন্ডারটিকে হোমল্যান্ড সিকিউরিটি সার্ভিসেস লি. কে পায়িয়ে দেওয়ার জন্য ওই কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব, শাহিরুল সিকদার-এর কাছে নগদ ১ কোটি টাকা এবং কার্যাদেশ প্রদানের পরে ৫ কোটি টাকা দাবি করেন। শাহিরুল সিকদার উক্ত প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার প্রতিষ্ঠানকে অউন রেসপন্সিভ করেন। পরবর্তীতে আমরা অবহিত হয়েছি যে, পরবর্তীতে মোঃ জাহিদুল হক সরদার, উক্ত প্রকল্প পরিচালক, আল আরাফাত সিকিউরিটি সার্ভিসেস লি. এর কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য উক্ত প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনাব, বেলায়েত হোসেন এর সাথে সমযোতা করে বেলায়েত সাহেব থেকে বিপুল অংকের টাকা গ্রহন করেন এবং টেন্ডার কমিটি ম্যানেজ করে সিডিইউল এর শর্ত নং- (আই টি টি-৪০.৭) ব্যতয় করে বেআইনি ভাবে আল আরাফাত সিকিউরিটি সার্ভিসেস লি. এর অনূকুলে (এলওএ) প্রদানের ব্যবস্থা করেছেন।
সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদেরকে আমরা তথ্য ও প্রমানাদির ভিত্তিতে অবহিত করতেছি যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই সুন্দর উদ্দোগকে ব্যহত করিতেছে এই মোঃ জাহিদুল হক সরদার, উক্ত প্রকল্প পরিচালক এবং বেলায়েত হোসেন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, আল-আরাফাত সিকিউরিটি সার্ভিসেস লি.।
তিনি আরো বলেন, আল-আরাফাত সিকিউরিটি সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বেলায়েত হোসেন উক্ত (এলওএ) প্রাপ্তির পরে সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন বেকার ভাই-বোনদের জনশুমারি ও গৃহ গণনা ২০২১ প্রকল্পের প্রকল্প এ আউটসোসিং পদ্ধতিতে ডাটা এন্ট্রি অপারেটর, ড্রাইভার, এমএলএসএস পদে চাকরি দেওয়ার নামে কমপক্ষে ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে। এই বিষয়ে আমরা বাংলাদেশ প্রফেশনাল আউটসোর্সিং ম্যানপাওয়ার সাপ্লাইয়ার্স ওনার্স এ্যসোসিয়েশন্স এর পক্ষ থেকে দুর্ণীতি দমন কমিশন বরাবর অভিযোগ দাখিল করেছি। তিনি তার বক্তব্যের সমর্থনে বেশ কিছু কথপোকথনে অডিও ও ভিডিও রেকর্ড সাংবাদিকদের সামনে উপস্থাপন করেন।