পিরোজপুরে শিক্ষার্থীদের মাঝে ‘বদলে যাও’ এর সুরক্ষা সামগ্রী

শিক্ষাঙ্গন সারাদেশ সাস্থ্য

নিজস্ব প্রতিনিধি : আতংক নয়, সচেতনতাই প্রতিকার এই স্লোগানে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনা ভাইরাস সচেতনা বৃদ্ধি ও সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেছে ‘বদলে যাও’ নামে আর্তমানবতার সেবায় নিবেদিত একটি সামাজিক প্রতিষ্ঠান। গতকাল পিরোজপুর জেলার সদর উপজেলার জুসখোলাস্থ এসকে মজুমদার কৃষি ও কারিগরি মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকগণের মাঝে মাক্স ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি মো. আলাউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মেহেদি হাসান (সজিব), আরও উপস্থিত ছিলেন অত্র প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রবীর বড়াল ও অন্যান্য শিক্ষক বৃন্দ।
এসময় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. মেহেদি হাসান (সজিব) বলেন, আপনারা কেউ আতংকগ্রস্থ হবেন না, আপনাদের একটু সচেতনতাই পারে এই মহামারি রোধে অগ্রণী ভূমিকা। সরকার ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের যাবতীয় গাইডলাইন অনুসরন করলে আমরা এই বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পারবো। আবারও ফিরে আসবে আমাদের সেই সোনালী দিন। এক্ষেত্রে শিক্ষাথীরা এই ব্যাপারে সমাজের সকল স্তরের মানুষের মাঝে সাচেতনতা বৃদ্ধি করতে অগ্রনী ভূমিকা পালন করতে পারে। তিনি আরও বলেন, বাইরে বের হলে সব সময় মাক্স ব্যবহার করতে হবে। বিনা প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের না হওয়ার অনুরোধ করেন। এছাড়া তিনি কিছুক্ষন পরপর সাবান বা জীবানু নাশক দিয়ে হাত ধোয়ার জন্য বলেন।
সভাপতি তার বক্তব্যে বলেন, আমরা চাই মানুষের সেবায় সর্বসময় আমাদের সামাথ্য অনুযায়ী ঝাপিয়ে পড়তে। আমি একটি কথাই বলবো সচেতনা ছাড়া আমরা এই মহামারি থেকে বাঁচতে পারবো না। তাই আসুন এখনি আমরা এই মহামারি থেকে বাঁচতে যার যার অবস্থান থেকে সামাজিক দূরত্ব ও সুরক্ষা নিশ্চিত করি।
অধ্যক্ষ প্রবীর বড়াল বলেন, আজকে আমরা যেই ক্লান্তিকালের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি তা উত্তরনের জন্য আমাদের অবশ্যই সচেতন হতে হবে। সুরক্ষা সামগ্রী ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করাই আমাদের প্রধান চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, “বদলে যাও” সংগঠনটি এই সময় এই মফস্বল এলাকায় আমাদের শিক্ষার্থীদের জন্য এ ধরনের একটি কার্যক্রম নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবীদার। আমরা এই সংগঠনের উত্তর উত্তর উন্নতি ও সাফল্য কামনা করি। তারা যেন এভাবেই মানুষের সেবায় সব সময় নিবেদিত থাকতে পারে।
এতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্যে রাখেন প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ। উক্ত আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেছে আনিসা কর্পোরেশন ও মেঘনা সায়েন্টিকি নামে ২টি প্রতিষ্ঠান।