কালিয়ায় গুলি করে হত্যার প্রধান আসামি আটক

সারাদেশ

মো: রফিকুল ইসলাম, নড়াইল: নড়াইল কালিয়া উপজেলার দেওয়াডাঙ্গা গ্রামে গুলি করে মাসুদ রানা (৩৫) হত্যা মামলার প্রধান আসামি নড়াইল জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি”র) হাতে আটক।কালিয়া থানার মামলা নং ৪ তাং ০৬/০৮/২০২০ ধারা ১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩২৪/৩২৫/৩২৬/৩০২/৩০৭/১১৪/৩৪ পেনাল কোড।
হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকতা এস আই (নিঃ) মিলটন কুমার দেব দাস এ প্রতিবেদককে জানান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) স্যার আমাকে মাসুদ রানা হত্যা মামলার তদন্ত ভার দিয়েছেন, তারই ধারাবাহীকতায় স্যারের দিকনির্দেশনা মোতাবেক মাসুদ রানা হত্যা মামলায় এজাহার নামীয় প্রধান আসামি ১. মোঃ কাজল মোল্ল্যা (৪৯), ২.মোঃ টনি মোল্লা, উভয় পিং-মৃত মকবুল হোসেন মোল্ল্যা, ৩.সোহান মোল্লা (২৪),পিং-মৃত ফেরদৌস মোল্ল্যা,সর্ব সাং-দেওয়াডাংগা, থানা-কালিয়া, জেলা -নড়াইলকে (৫আগস্ট) বুধবার অভিযান চালিয়ে কালিয়া ও খুলনা থেকে গ্রেফতার করা হয় এবং আবারও আসামী কাজলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তাকে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে কালিয়া থানার মাধবপাশা গ্রামের সেলিম বিশ্বাসের বসতবাড়ির পেছনের বাগান থেকে আসামির বের করে দেয়া মতে এই হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত কাজলের লাইসেন্স কৃত দো-নালা বন্ধুক ৮ রাউন্ড তাজা গুলি উদ্ধার করা হয়। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ৭ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়।
আসামী কাজল আজ (৬আগস্ট) বৃহস্পতিবার দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত এর বিচারক জাহিদুল আজাদ এর কাছে স্বেচ্ছায় ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করে,পরে আসামীদের জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

এদিকে, নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পুরুলিয়া ইউনিয়নের দেওয়াডাঙ্গা গ্রামে আজ বুধবার (৫ই আগস্ট) সকালে দুপক্ষের সংঘর্ষ চলাকালে মাসুদ রানা (৩৫) নামে এক ব্যক্তি গুলিতে নিহত হয়েছেন। নিহত মাসুদ রানা একই গ্রামের আলী আকবর শেখের ছেলে। এ সংঘর্ষে নারী ও শিশুসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১০জন।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও নবগঙ্গা নদীর চরের বালি উত্তলোনকে কেন্দ্র করে দেওয়াডাঙ্গা গ্রামের কাজল মোল্যা সমর্থিত লোকজনের সঙ্গে আমিনুর শেখ সমর্থিত লোকজনের ধন্ধ সংঘাত চলে আসছিল।
আজ বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কাজল মোল্যা সমর্থিত লোকজন চরের বালি উত্তলোন করতে গেলে প্রতিপক্ষ আমিনুর শেখ সমর্থিত লোকজন বাঁধা দেয়।এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।সংঘর্ষ চলাকালে প্রতিপক্ষের ছোড়া গুলিতে আমিনুর শেখ সমর্থিত মাসুদ রানাসহ ৭জন গুলিবিদ্ধ হন।
এছাড়া দেশীয় ধারোলো অস্ত্রের আঘাতে ৩জন আহত হয়েছেন।
স্থানীয় লোকজন গুলিবিদ্ধ মাসুদ রানাকে উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতালে আনার পর তিনি মারা যান।
আহতদের কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, নড়াইল সদর হাসপাতাল ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: রফিকুল ইসলাম, এ প্রতিবেদককে জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে এ পযন্ত ৫জনকে আটক করা হয়েছে।
বাকি জড়িতদের গ্রেফতারে জোর চেষ্টা চলছে। লাশের ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।