নাগরিক ভোগান্তি

এইমাত্র জাতীয় জীবন-যাপন রাজধানী সাস্থ্য

অপরিকল্পিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় স্বাস্থ্যঝুঁকি

 

বিশেষ প্রতিবেদক : রাজধানীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নানা পরিকল্পনা থাকলেও শুধু হাতের কাছে ডাস্টবিনের অভাবে সড়কজুড়ে আবর্জনার ছড়াছড়ি। যা একদিকে বাড়াচ্ছে নাগরিক ভোগান্তি, অন্যদিকে দেখা দিচ্ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। এ অবস্থায় বিশেষজ্ঞরা, পরিকল্পিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনার তাগিদ দিলেও ফুটপাত কেন্দ্রিক ডাস্টবিনে ফিরছে না দক্ষিণ সিটি। তবে উন্নত প্রযুক্তির ডাস্টবিন স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে উত্তর সিটি।
প্রায় দুই কোটি মানুষের শহরে চলার পথে বর্জ্যের এমন ছড়াছড়ি এখন অনেকটাই সয়ে গেছে নগরবাসীর। বিচ্ছিন্নভাবে ছড়িয়ে থাকা এসব বর্জ্য আপাতদৃষ্টিতে বড় কিছু মনে না হলেও দিন শেষে এর পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ১ হাজার ৫৫৫ টনে। প্রশ্ন হচ্ছে শহরময় বর্জ্যের এমন অব্যবস্থাপনার দায় কার?
অপরিকল্পিত শহরের কালিমা মাখা রাজধানীর সব থেকে পরিকল্পিত সড়ক। আগারগাঁওয়ের এই সড়কে আছে প্রশস্ত ফুটপাত, সাইকেল লেন এমনকি গাড়ি পাকিংয়ের সুবিধা। অথচ নেই ডাস্টবিন। ফলাফল সড়ক জুড়ে বর্জ্যের ছড়াছড়ি। নেই কারো কোনো মাথাব্যথা, নগর কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ।
এ তো গেলো পরিকল্পিত সড়ক ভাবনায়, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উদাসীনতার চিত্র। রাজধানীর অন্যান্য সড়কের অবস্থা এর থেকে ভালো নয় মোটেই। স্বল্প দূরত্বে কোথাও নেই ডাস্টবিন। চলার পথে বর্জ্য বিড়ম্বনা নগরবাসীর প্রতিদিনকার সমস্যা।
সাধারণ মানুষ জানান, এখানে এত সুন্দর রাস্তায় ডাস্টবিন দেয়নি। এতে সব ধরনের রাস্তায় ফেলা হচ্ছে।
সড়কের বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় কাজ যে হয়নি তা কিন্তু নয়। ২০১৬ সালে প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নগরজুড়ে ১১ হাজার মিনি ডাস্টবিন বসায় রাজধানীর দুই সিটি। অথচ দীর্ঘদিনের অবহেলায় এর অধিকাংশই এখন ব্যবহার অনুপযোগী। আবার অনেকগুলোর অস্তিত্বই নেই।
দীর্ঘদিনের নাগরিক এই সমস্যা সমাধানে উত্তর সিটি নতুন উদ্যোগ নিলেও সড়কে ডাস্টবিন বাসানোর সিদ্ধান্ত নেই দক্ষিণের।
দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, নান্দনিক এলাকাগুলোতে হাতে ময়লা ফেলার জন্য আমরা ডাস্টবিন বসানো হবে।
উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ময়লা ও আবর্জন জন্য উন্নত প্রযুক্তির ডাস্টবিন স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। দ্রুতই সেগুলো দেখা যাবে।
তবে নগরবিশেষজ্ঞরা মনে করেন, শুধু দৃষ্টিদূষণই নয়, জলাবদ্ধতা ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিতে বিকল্প নেই আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার।
নগরপরিকল্পনাবিদ ইকবাল হাবিব বলেন, প্রতি একশ ফুট অন্তর ডাস্টবিন স্থাপন করা কোনো কঠিন কাজ না। সেটা সিটি কর্পোরেশন দ্বারা সরবরাহকৃত হতে পারে এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্নের নিশ্চয়তা নিশ্চিত করতে হবে।
রাজধানীতে প্রতিদিন তৈরি হওয়া ছয় হাজার টন বর্জ্যের, দেড় হাজার টনই জমে সড়কে।