ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

এইমাত্র জাতীয় জীবন-যাপন রাজধানী রাজনীতি

ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন

 

আহমেদ হৃদয় : ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ এর নির্বাচনী গণসংসযোগে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থকদের মধ্যে ইট পাটকেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে যাত্রাবাড়ীর শহীদ ফারুক সড়কের সামনে এই ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানা গেছে, বিএনপি প্রার্থী নির্বাচনী গণসংযোগ চালাতে যাত্রাবাড়ীর শহীদ ফারুক সড়কে এলে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিস থেকে বিএনপির নেতাকর্মীদের উপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা হলে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়। উভয় পক্ষের ইট পাটকেল নিক্ষেপের এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা স্থান ত্যাগ করে।
এসময় ছাত্রদল ও যুবদলসহ ১০-১২ জন বিএনপি নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিক্যালে নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। পরে পুলিশী বাধা উপেক্ষা করেই মিছিল শুরু করে বিএনপি নেতাকর্মীরা।
এ বিষয়ে বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিনের ছেলে তানভীর আহমেদ রবিন বলেন, এখন থেকে নির্বাচনের দিন পর্যন্ত আওয়ামী সন্ত্রাসীরা দৌড়ের উপর থাকবে।
বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ১৭ তারিখ কেন্দ্রে কেন্দ্রে আমি নিজে থাকবো। কোন উস্কানিমূলক কর্মকা- হলে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে। এই এলাকায় এখন থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।
এদিকে, আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনু সকালের সময়কে বলেন, গতকাল মারামারি হয়েছে সেটা আমি জানি; কিন্তু কে বা কারা মারামারি করেছে তা আমি জানি না। আর আমি বর্তমানে নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত আছি।
তিনি আরো বলেন, তবে মারামারিতে যুবলীগের ৩ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন তবে এই মুহুর্তে সঠিকভাবে বলতে পারবো না ঠিক কত জন আহত হয়েছে।
এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য যাত্রাবাড়ী থানা ওসিকে একাধিবার ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।
অপরদিকে, রাজধানীতে তিনদিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। ১৭ অক্টোবর ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচন উপলক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।
বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে ১৮ অক্টোবর রাত ১২টা পর্যন্ত মোট তিনদিন মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি ঢাকা-৫ নির্বাচনী এলাকায় ১৬ অক্টোবর রাত ১২টা থেকে ১৭ অক্টোবর রাত ১২টা পর্যন্ত ট্রাক ও পিকআপ বন্ধ থাকবে। এসব যানবাহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক/সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্তৃপক্ষকে ক্ষমতা দিয়েছে ইসি।
প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়েছে, এ নিষেধাজ্ঞা রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি/বিদেশি পর্যবেক্ষকদের ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য। তাছাড়া নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত দেশি/বিদেশি সাংবাদিক নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কতিপয় জরুরি কাজ যেমন- অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে ওই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ রূপ নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে পারবেন।