পরবর্তী নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত ফ্লাইটে পরিবর্তন আসছে না

জাতীয়

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : পরবর্তী নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত বিমানের ফ্লাইট যেভাবে চলছে সেভাবেই চলমান থাকবে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।
তিনি বলেন, সরকার করোনা পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। পরবর্তী নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত বর্তমানে ফ্লাইট যে অবস্থায় চলাচল করছে সেই অবস্থাতেই চলাচল করবে। পরিবর্তিত পরিস্থিতি বিবেচনায় ফ্লাইট বন্ধ করার প্রয়োজন হলে বন্ধ করা হবে।
বৃহস্পতিবার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে নিরাপত্তা মহড়া-২০২০ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন।
বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাপী বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করেই সামনে অগ্রসর হতে হবে। করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় কয়েকমাস আগে সারাবিশ্বে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ ছিল। পরবর্তীতে তা আবার চালু হয়। বর্তমান করোনা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে সরকার। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) অত্যন্ত সজাগ। সেই সঙ্গে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ, পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র সবাই সজাগ দৃষ্টি রাখছে।
প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, যেহেতু যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়েছে সেহেতু যুক্তরাজ্য থেকে আগত যাত্রীদের ব্যাপারে স্পেশাল কেয়ার নেয়া হচ্ছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কিংবা যেকোনো এয়ারলাইন্সেই যুক্তরাজ্য থেকে যারা আসছেন তাদের আলাদাভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। যদি করোনা সন্দেহভাজন কাউকে পাওয়া যায় তার পিসিআর টেষ্ট করা হচ্ছে। পজিটিভ হলে তাকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হবে।
তিনি বলেন, শুধু তাই না, যারা নেগেটিভ সনদ নিয়ে আসছেন তাদেরকেও কঠোর পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে। যারা হোম কোয়ারেন্টাইনে যাচ্ছেন তাদের তালিকা সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্য অধিদফতর ও স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়ে দিচ্ছেন। তারা যাতে বাড়ি থেকে বের না হন সে ব্যাপারে সব সময় খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে।
কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থা পর্যাপ্ত কিনা এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কোয়ারেন্টাইনের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে বলে তিনি মনে করেন। তবে প্রয়োজনে আরও কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করা হবে।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যেভাবে করোনা সংক্রমণ রোধে ব্যবস্থা নেয়া হয় শাহজালালসহ বিভিন্ন বিমানবন্দরে সে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় তারা প্রস্তুত।