ডায়রিয়া-বমি শিশুর জন্য দুশ্চিন্তার কারণ

সাস্থ্য

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ডায়রিয়া ও বমি বড়দের ক্ষেত্রে খুব বেশি চিন্তার বিষয় না হলেও, বাবা-মায়েদের কাছে তাদের শিশুর জন্য এটি খুবই দুশ্চিন্তার কারণ। বাবা-মায়েরা বর্তমান সময়ে শিশুদের ডায়রিয়া ও বমি নিয়ে হেলথমেন এর সরনাপন্ন হচ্ছেন। এ বিষয়ে তাই সাধারণ করনীয় ও বর্জনীয়গুলো জেনে নেওয়া উচিতঃ

ডায়রিয়া ও বমি হলে শিশুদের জন্য সব থেকে ভয়ের কারণ- পানিশূন্যতা বা ডিহাইড্রেশন। তাই শিশুদের ডায়রিয়া ও বমি হলে এই বিষয়গুলো খেয়াল করুনঃ
প্রতিবার বমি বা ডায়রিয়া হবার পর শিশুকে সেলাইন, খাবার পানি ইত্যাদি দিন।
শিশুকে বিশ্রাম দিন। খেয়াল রাখুন, পানিশূন্যতার লক্ষ্যণগুলো (চোখ গর্তে চলে যাওয়া, প্রশ্রাব কমে যাওয়া ইত্যাদি)
বুকের দুধ চালিয়ে যান, যদি একবারে ঠিকমত খেয়ে না পারে, কিছুক্ষণ পর পর চেষ্টা করুন
একটু বড় শিশুদের ঘরোয়া খাবার দেওয়ার চেষ্টা করুন। খাবার মাঝে মাঝে পানি দিন।
যখন খাবার প্রয়োজন মনে হবে তখনই খাবার দিন। নির্দিষ্ট কোন খাবার অতিরিক্ত দেওয়া বা বন্ধ করে দেওয়া উচিৎ নয়।

হঠাৎ অসুস্থ শিশু যেকোন বাবা মায়ের যন্ত্রনার সব থেকে বড় কারণ। অনেক সময়ই আপনারা ঘাবড়ে যান, বুঝতে পারেন না কি করনীয়। আপনার পাশে আছে হেলথমেন, যেকোন প্রয়োজনে তাৎক্ষনিক ডাক্তারের এপয়েনমেন্ট নিন ”

এই অবস্থায় যেই কাজগুলো করা থেকে বিরত থাকবেনঃ
শিশুকে ফলের জুস বা বোতলজাত পানিয় দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। এটি অনেক সময়ই ডায়রিয়া বা বমিকে আরও খারাপ করে দিতে পারে।
ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া বিশেষ করে ১২ মাসের কম বয়সী শিশুকে কোন ঔষধ দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।
খাবার সেলাইনের কিছু অংশ নিয়ে সেলাইন বানানো থেকে বিরত থাকুন! এই একটি ভুলে শিশু মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। পেকেটে দেওয়া নিয়ম সম্পূর্ণভাবে অনুসরণ করুন।
পোষ্ট ভালো লাগলে লাইক কমেন্ট ও শেয়ার দিয়ে আমাদের গ্রুপের সাথেই থাকুন