গভীর রাতে নৌকার অফিসসহ নৌকায় আগুন

সারাদেশ

স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মির উপরে হামলার অভিযোগ

 

 

মো:রফিকুল ইসলাম : নড়াইল পৌরসভার আলাদাতপুর ও ডুমরতলা ওয়ার্ডের দলীয় নৌকার প্রতিকসহ প্রচার প্রচারনা অফিসে গভির রাতে ভয়াবহ্ আগুন লাগায় অজ্ঞাত সন্ত্রাসী”রা।
এ ঘটনায় দলীয় প্রার্থী আঞ্জুমান আরার মেয়ে সঞ্চিতা আহম্মেদ বাদী হয়ে ৬০ জনের নামে মামলা করেন,পুলিশ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছেন।
মামলার বাদী সঞ্চিতা আহম্মেদ জানান,মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নড়াইল শহরের গোচর-দুগাপুর এলাকায় নৌকা প্রতীকের মিটিং ছিলো।
মিটিং এ যাওয়ার সময় আওয়ামী-লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সরদার আলমগীর হোসেনসহ তার লোকজন মুখোমুখি হয়ে নৌকা প্রতীকের কর্মীদের ওপর হামলা চালায়,এসময় আমাদের পক্ষের অন্তত ৪ জন আহত হন।
দলীয় মনোনীত প্রার্থী আনঞ্জুমান আরা,সাংবাদিকদের জানান,আমি,হঠাৎ মদ্ধ্য রাতে খবর পেলাম আমার অফিসে কে বা কাহারা আগুন ধরিয়ে দিয়েছে,আমি খবর পেয়ে অফিসে এসে দেখি অফিসে আগুন জলছে। এবং আমার ডুমরতলা ওয়ার্ডের অফিসের নৌকা প্রতিক পুড়িয়ে দিয়েছে। আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি,সঠিক তদন্তের মাদ্ধমে আমি এর সুস্থ্য বিচার চাই বলেও জানান।
এদিকে সতন্ত্র প্রার্থী জগ প্রতিকে আলোমগীর হোসেন আলোম সাংবাদিকদের অভিযোগ করে জানান, মঙ্গলবার সন্ধায় নড়াইল পুরাতন বাসটার্মিনালের উদ্দেশে বাড়ি হতে রওনা হলে পথিমধ্যে গোচর-দুগাপুর নামক স্থানে আমার কর্মি হালীমের উপরে কে বা কাহারা হামলা করে।
এসময় গুরুতর আহত অবস্থায় হালীম কে নড়াইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়,তার পরেও আমিসহ আমার নেতা কর্মিদের নামে মামলা হয়েছে,এমন প্রতিহিংসা মূলক নির্বাচন করা ঠিক না,যে যার মত করে নির্বচনী প্রচার প্রচারনা করবে এতে হামলা মামলার কারন কি,সঠিক তদন্তের মাদ্ধমে দোষীদের শাস্তি চাই বলেও জানান আলোম।
নাম পরিচয় দিতে অনিচ্ছুক একাধীক ব্যক্তি জানান,নড়াইল শহরের রাস্তা গুলাতে মাননীয় এমপি মাশরাফীর দেয়া অনেক গুলা সিসি ক্যামেরা রয়েছে সেটার ফুটেজ চেক করলেই আসল অপরাধীরা বেরিয়ে আসতে পারে কিন্তু অহেতুক কোন নিরীহ ব্যক্তী যেন রাজনিতীর শিকার না হয় বলেও জানান।
নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন জানান,মঙ্গলবারের ঘটনায় আওয়ামী-লীগের মেয়র প্রার্থী আঞ্জুমান আরার মেয়ে সঞ্চিতা আহম্মেদ বাদী হয়ে ৬০জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছে। এ ঘটনায় ৬জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
পৌর এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশী তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে।