ওমানে নবনিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

জাতীয় আন্তর্জাতিক

নিজস্ব প্রতিনিধি : সোমবার সালতানাত অব ওমানে নবনিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিজানুর রহমান, সালতানাত অব ওমানের মহামান্য সুলতান মহামহিমাময় হাইতাম বিন তারিকের নিকট তাঁর পরিচয়পত্র আনুষ্ঠানিকভাবে পেশ করেছেন।

ওমানের রাজধানী মাস্কাট নগরীর বাইরে বারকা অঞ্চলে “কছর আল বারকা” প্রাসাদে এক আড়ম্বরপুর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পরিচয়পত্র পেশ অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়। মান্যবর রাষ্ট্রদূত মহোদয় অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছানোর পর ওমানের রাজকীয় বাহিনীর চৌকস বাদকদল বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত বাজিয়ে শোনান। এরপর তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।মান্যবর রাষ্ট্রদূত রাজকীয় অভিবাদন গ্রহণ করেন।

এরপর ওমানের রাজকীয় শিষ্টাচার প্রধান মান্যবর রাষ্ট্রদূত মহোদয়কে পরিচয়পত্র পেশ অনুষ্ঠানের হলরুমে নিয়ে যান। সেখানে মহামান্য সুলতান হাইতাম বিন তারিকের সাথে ওমানের মান্যবর পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইয়িদ বদর বিন হামাদ বিন হামুদ আল বুসাইদী, দিওয়ান অব রয়্যাল কোর্টের মান্যবর মন্ত্রী সাইয়িদ খালিদ বিন হিলাল বিন সাউদ আল বুসাইদি উপস্থিত ছিলেন। মান্যবর রাষ্ট্রদূত জনাব মিজানুর রহমান গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ এর মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রদত্ত পরিচয়পত্রটি মহামান্য সুলতানের নিকট হস্তান্তর করেন। মহামান্য সুলতান পরিচয়পত্র গ্রহণ করেন এবং মান্যবর রাষ্ট্রদূত মহোদয়কে স্বাগত জানান এবং সংক্ষিপ্ত আলোচনার আমন্ত্রণ জানান।

মহামান্য সুলতানের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে মান্যবর রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন এবং তাঁর পরিচয়পত্র গ্রহণ করার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

মান্যবর রাষ্ট্রদূত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে অর্জিত বাংলাদেশের স্বাধীনতা পর বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম অগ্রগামী ওমানের কথা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন। এছাড়াও, আধুনিক ওমান বিনির্মাণে প্রায় ৭ লক্ষাধিক বাংলাদেশী প্রবাসীদের অংশগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়ার জন্য মান্যবর রাষ্ট্রদূত কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। মান্যবর রাষ্ট্রদূত বলেন যে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে “ঐতিহাসিক মুজিববর্ষ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর” অনুষ্ঠানমালায় মহামান্য সুলতানের যোগদান দু’দেশের বিদ্যমান ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে উচ্চতর এক ঐতিহাসিক রূপ দিবে । মহামান্য সুলতান আন্তরিক ধন্যবাদ জানান এবং সুবিধাজনক সময়ে তা যথাযথ বিবেচনা করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশ ও ওমানের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাণিজ্য ও বিনিয়োগভিত্তিক সম্পর্কের উপর কাজ করার পরিকল্পনা ব্যক্ত করেন। মহামান্য সুলতান এ পরিকল্পনাকে স্বাগত জানান এবং তাঁর সরকারের সর্বতঃ সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানটি ওমান জেনারেল টেলিভিশন চ্যানেল সরাসরি সম্প্রচার করেছে।