বিএসটিআইয়ের বাধ্যতামূলক তালিকায় যুক্ত আরও ৪৩ পণ্য

এইমাত্র অর্থনীতি জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক : খাবার ও ঘরের কাজে ব্যবহৃত সামগ্রী, প্রসাধনী, কাপড়, জুতা, ইলেকট্রিক ও নির্মাণকাজে ব্যবহৃত পণ্যসহ মোট ৪৩টি পণ্য বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) বাধ্যতামূলক পণ্যের তালিকায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে। এসব পণ্য এখন বাজারজাতকরণে বাধ্যতামূলকভাবে বিএসটিআইয়ের লাইসেন্স নিতে হবে।
সম্প্রতি গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি জানিয়েছে বিএসটিআই। এ বিষয়ে গত মাসের শেষে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। আগামী পহেলা এপ্রিল থেকে নতুন ৪৩টি পণ্য বিএসটিআইয়ের লাইসেন্স ছাড়া বাজারে বিক্রি করা যাবে না।
নতুন পণ্য যুক্ত হওয়াতে বিএসটিআইয়ের বাধ্যতামূলক পণ্যের তালিকা দাঁড়াল ২৩০টিতে। এতদিন ১৮৭টি পণ্য বাধ্যতামূলকভাবে তদারকি করতো দেশের একমাত্র মান নিয়ন্ত্রক এই সংস্থাটি।
নতুন যুক্ত হওয়া পণ্যের মধ্যে খাদ্যপণ্য রয়েছে ৯টি। সেগুলো হলো- আলুর চিপস, কর্নফ্লাওয়ার, পাস্তুরিত ও ভেজিটেবল ফ্যাট মিশ্রিত গুড়া দুধ, স্বাদযুক্ত দুধ, কম ফ্যাটযুক্ত দুধ, আইসললি, ওটস্, ভিনেগার ও বড় জারের পানি।
এছাড়া স্বর্ণ, সুতি শাড়ি, জুতা, হাতে তৈরি সুতি লুঙ্গি কাপড় ও তুলাসহ বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রীর মধ্যে বিএসটিআইয়ের বাধ্যতামূলক তালিকায় যুক্ত হয়েছে মেহেদী (পাওডার ও পেস্ট) ও নেলপলিশ। পুরুষদের ব্যবহৃত রেজারের ব্লেডও বিএসটিআইয়ের তালিকায় রয়েছে।
ঘরে ব্যবহার করা পণ্যের মধ্যে বিএসটিআইয়ের বাধ্যতামূলক হয়েছে নতুন নতুন বেশকিছু পণ্য। এর মধ্যে রয়েছে থালা-বাসন পরিষ্কারের গুড়া সাবান, মেঝের গুড়া সাবান, টয়লেট ক্লিনার, এলকোহল যুক্ত হ্যান্ড স্যানেটাইজার এবং লিকুইড হ্যান্ডওয়াশ। এছাড়া কাঁচের বিভিন্ন টেবিলের সামগ্রী এখন বিএসটিআইয়ের তালিকায় যুক্ত হয়েছে।
নির্মাণকাজে ব্যবহৃত পণ্যের মধ্যে সিনথেটিক রঙ, ছিদ্রযুক্ত ইট ও ব্লক, কংক্রিট, পিভিসি, আবাসনে ব্যবহৃত প্লাস্টিক পণ্য, কাঁচ, ছাদের পানির ট্যাংকি বিএসটিআইয়ের বাধ্যতামূলক পণ্য এখন। ইলেক্টনিক সামগ্রীর মধ্যে ফ্রিজের বিদ্যুৎ সরবরাহে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ, এসির ফ্যানের জন্য এখন বিএসটিআইয়ের অনুমোদন লাগবে। এছাড়া ট্রাক-বাসের টায়ার ও রিং যুক্ত রয়েছে বাধ্যতামূলক তালিকায়।
বিএসটিআই জানিয়েছে, এসব পণ্যের বাজারজাতের জন্য এখন সিএম (মান) লাইসেন্স লাগবে। আগামী দুই মাসের মধ্যে এসব পণ্য সিএম লাইসেন্স ব্যতিত বিক্রি-বিতরণ ও বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার বিএসটিআইয়ের আইন ২০১৮ এর পরিপন্থী হবে।
এ বিষয়ে বিএসটিআইয়ের পরিচালক (মান) মো. সাজ্জাদুল বারী বলেন, গত ৩১ জানুয়ারি এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছিল। সেই হিসেবে পহেলা এপ্রিলের মধ্যে সকল পণ্যের সিএম লাইসেন্স বাধ্যতামূলক নিতে হবে।
এদিকে সংস্থাটির পরিচালক (প্রশাসন) তাহের জামিল বলেন, যারা নতুন তাদেরকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সিএম লাইসেন্সের পাশাপাশি মোড়কজাত লাইসেন্স নিতে হবে। লাইসেন্স নেয়ার পর বিএসটিআইয়ের মানচিহ্ন ব্যবহার করে বাজারে পণ্য বিক্রি করতে হবে। সময়ের পরেও যারা লাইসেন্স নেবে না তারা পণ্য সরবরাহের পাশাপাশি বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনও প্রচার করতে পারবে না।