অনলাইন প্রতারণা

অপরাধ জাতীয় জীবন-যাপন

৫০ শতাংশ টাকা নিয়ে সটকে পড়ে চক্রটি

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : অনলাইনে পণ্য কিনতে গিয়ে শুধু গ্রাহক নন, প্রতারণার শিকার হচ্ছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও। পণ্যের ডেলিভারি চার্জ কিংবা অগ্রিম টাকা পরিশোধ করার পর পণ্য সরবরাহ না করার মত ঘটনা ঘটছে অহরহ। অনেক সময় গছিয়ে দেয়া হচ্ছে নকল পণ্য। অনলাইনে চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে যাচাই বাছাই না করেই পণ্য ক্রয় করার ক্ষেত্রে গ্রাহক এবং ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সতর্ক হওয়ার পরামর্শ পুলিশের।
ফেসবুকে একটি পেজ খুলে গেল ৬ মাস ধরে ব্যবসা করেন এই তরুণী। চায়না টু বাংলাদেশ নামক ফেসবুক গ্রুপে পণ্য কিনতে পোস্ট দেন তিনি। তার দেয়া পোস্টে পণ্য আছে জানিয়ে যোগাযোগ করেন একজন। পণ্যের মূল্য বাবদ অগ্রিম ৫০ শতাংশ টাকাও পরিশোধ করেন। শেষ পর্যন্ত পণ্য তো জোটেইনি তাকে দ্বারস্থ হতে হয়েছে পুলিশের।
ভিকটিম জানান, ওর সাথে আমার ৫০ হাজার টাকা দেয়ার করার কথা ছিলো। পরে আমি ৫০ শতাংশ টাকা পাঠিয়ে দিয়েছি। আর বাকি টাকা ক্যাশ দেয়ার কথা ছিল।
তার করা মামলা তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ সন্ধান পায় একটি অনলাইন প্রতারক চক্রের যারা ফেসবুকে পণ্য কেনাবেঁচার পাইকারি গ্রুপে নামি দামি পণ্যের চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছিল। যাদের টার্গেট ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। পণ্যের ডেলিভারি চার্জ এবং মূল্য বাবদ ৫০ শতাংশ পাওয়ার পর যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় তারা।
চক্রের ৫ সদস্যকে নওগাঁ থেকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশের সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ।
সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের ডিবি সহকারী পুলিশ কমিশনার হাসান মুহতারিম সজীব বলেন, ৫০ শতাংশ টাকা নেয়ার পর ওই আইডি বন্ধ হয়ে যায়। যে সিমের মাধ্যমে টাকা আদান ও প্রদান করা হয় সেটা বন্ধ করে দেয়া হয়।
সাইবার এন্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার শরীফুল ইসলাম বলেন, অনলাইনে পণ্য ক্রয় বিক্রয়ের নামে যারা প্রতারণার আশ্রয় নিচ্ছে তাদেরকে আইন আমলে আনতে পুলিশের সব সক্ষমতা আছে এবং ইতিমধ্যে ব্যবস্থা নেয়া শুরু হয়েছে।
ফেসবুকে বিভিন্ন পেজ বা গ্রপ থেকে পণ্য কেনার ক্ষেত্রে গ্রাহককে আরো সর্তক হওয়ার পরামর্শ পুলিশের।