করোনা মোকাবেলায় যশোর জেলা প্রশাসনের সতর্কতামুলক কার্যক্রম

সারাদেশ

সুমন হোসেন, যশোর : বংলাদেশে মহামারি করনা ভাইরাস-এর দ্বিতীয় ধাপে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় করোনা মোকাবেলায় সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে প্রাতিষ্ঠানিক লকডাউন। যেখানে সরকারের পক্ষ থেকে ১১ দফাতে বিভিন্ন নিয়ম-কানুন দেওয়া হয়েছে। যা সরকারের বিভিন্নভাবে করোনা মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা বহন করবে এমনটি প্রত্যাশা।
প্রথম ধাপের করোনা মোকাবেলা করতে সক্ষম হলেও, এবার দ্বিতীয় ধাপে বেড়েছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। যেখানে মানুষের টিকা নেওয়ার কারনে অভয় নিয়ে সাধারন জনগন একত্রিত হচ্ছে। যেখানে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ছিলো করোনা টিকা নেওয়া হলেও যেনো নিজের সুরক্ষার জন্য মাস্ক ব্যবহার ও সাবান দিয়ে হাত ধোয়া অব্যহত রাখতে হবে।
বিজ্ঞ যশোর জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয়ের নির্দেশনা মোতাবেক রবিবার যশোর শহরের সকল গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও জনসমাগমস্থলে (দড়াটানা, ঘোপ সেন্ট্রাল রোড, নিউমার্কেট বাবলাতলা, জেল রোড, লেবু তলা, খাজুরা বাজার, পালবাড়ি মোড়, ভাস্কর্যের মোড়, আরবপুর মোড়, ধর্মতলা, চাঁচড়া চেকপোস্ট, চাঁচড়া বাজার, নতুন বাস টার্মিনাল, আশ্রম মোড়, রেল স্টেশন, রেলগেট, রাসেল চত্বর, হাইকোর্ট মোড় বাজার, বড় বাজার, জজ কোর্ট চত্বর, প্যারিস রোড প্রভৃতি স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে।
ভ্রাম্যমাণ আদলত পরিচালনার সময় হ্যান্ডমাইক-এর মাধ্যমে সতর্কতামূলক বার্তা প্রচার করা হয়।
এদিকে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে মাস্ক ছাড়া জনসমক্ষে চলাচল করায়, মোট ২৮টি মামলায় ৩৫ জনকে ৭ হাজার ৫০০ টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। অভিযানকালে বাসে অধিক যাত্রী ওঠানোর অপরাধে একটি মামলায় ৫০০/- অর্থদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
শার্শা উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের ০৫টি মামলায় ১ হাজার ৪০০ টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়েছে। অপরদিকে অভয়নগর ও চৌগাছা উপজেলায় সচেতনতা তৈরি করতে মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে টহলরত প্রশাসনিক ইউনিট বিভিন্নভাবে বিভিন্ন এলাকায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করছেন বলে জানা যায়।