রাজধানীতে জাল টাকা তৈরির মিনি কারখানা আবিষ্কার

অপরাধ

আজকের দেশ রিপোর্ট : রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে জাল টাকার ‘মিনি কারখানা’, চালাতেন ২ ডিপ্লোমা প্রকৌশলী ঢাকার কামরাঙ্গীরচর নোয়াগাঁও এলাকায় জাল টাকার একটা ‘মিনি’ কারখানার সন্ধান পাওয়ার কথ জানিয়েছে পুলিশ।
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, এই জাল টাকা তৈরিতে দুজন ডিপ্লোমা প্রকৌশলী জড়িত।

প্রতি বছরই ঈদের আগে জাল টাকার প্রচলন বেড়ে যায় বলে পুলিশ সতর্ক থাকে। তার ধারাবাহিকতায় রোববার এই অভিযান চালানো হয়।

গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান জানান, রবিবার ১১ টার দিকে নোয়াগাঁওয়ের একটি ছয়তলা ভবনের দ্বিতীয় তলায় এই ‘মিনি’ কারখানার সন্ধান মেলে।

সেখান থেকে ইমাম হোসেন, পিয়াস ও জীবন নামে তিনজনকেও গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পিয়াস ও ইমাম বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে যথাক্রমে নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ারিং ও কম্পিউটার সায়েন্স নিয়ে ডিপ্লোমা করেছে।

ডিবি কর্মকর্তা মশিউর বলেন, ইমাম একটি টেলিকম কোম্পানিতে আউটসোর্সিংয়ে কাজ করতেন। পিয়াসও একটি কোম্পানিতে চাকরি করতেন।

বেশি টাকা পাওয়ার লোভে বৈধ চাকরি ছেড়ে দিয়ে জাল টাকা তৈরির অবৈধ কাজে যোগদান করে তারা। তাদের তৈরি জাল টাকার কোয়ালিটি যথেষ্ট উন্নত।

তাদের কাছ থেকে ৪৬ লাখ টাকার জাল নোট এবং টাকা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।
উপ কমিশনার মশিউর বলেন, প্রথমদিকে চক্রটি সাভারের জ্ঞানদা এলাকায় জাল টাকা তৈরি করতে থাকলেও ঈদকে কেন্দ্র করে তারা কামরাঙ্গীরচরে জাল টাকা তৈরির ব্যবসা শুরু করে তিন মাস ধরে।
জীবন এর আগেও জাল টাকা তৈরির সঙ্গে জড়িত থাকার কারণে একাধিকবার জেল খেটেছে বলে জানান তিনি।
তিনজনের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করবে পুলিশ।