সরিষাবাড়ীতে হোটেলের বাসি ও নিম্নমানের খাবার খেয়ে অসুস্হ প্রায় অর্ধ শতাধিক

সারাদেশ

মোস্তাফিজুর রহমান,সরিষাবাড়ী : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে হোটেলের বাসি ও নিম্নমানের খাবার খেয়ে নারী ও শিশুসহ অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি এবং চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি আছে ২২ জন রোগী।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রোগীদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, সরিষাবাড়ী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের পঞ্চপীর এলাকা হতে ৭ জুন দুপুর১২টা থেকে রাত ১২ পর্যন্ত বমি ও পাতলা পায়খানা বা ডায়রিয়াজনিত রোগী ভর্তি হয় এবং এদের মধ্যে কয়েকজন ৬থেকে ৯ বছর বয়সী শিশুও রয়েছে বলে জানা যায়।গুরুতর রোগীদেরকে জামালপুর সদর হাসপাতালে স্হানান্তর করা হয়েছে।

এদিকে ভূক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা যায়, সোমবার(৭ জুন)সকালে পঞ্চপীর বাজার মোড়ে মৃত আবুল হোসেন এর ছেলে লালু মিয়ার চা স্টলে হোটেলের মত ডাল রুটি বিক্রি করে। সেই বাসি ও নিম্নমানের ডাল রুটি খাওয়ার পর থেকেই লোকজন অসুস্থ্যতা বোধ শুরু করে এবং দুপুরের পর থেকে পর্যায়ক্রমে এলাকার প্রায় অর্ধশতাধিক লোক ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়। যাদের মধ্যে ২২জন গুরুতর অসুস্থ্য বলে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করাচ্ছেন বলে জানান রোগীদের পরিবারবর্গ।

এ ঘটনায় পঞ্চপীর এলাকায় জনসাধারণের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে । অনেকেই বলছেন লালু মিয়ার হোটেল খুবই অপরিস্কার, অপরিচ্ছন্ন ও নোংরা। সে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরী করে এবং পরিবেশন করে। তাকে এব্যাপারে এলাকাবাসী ইতোপূর্বেও সতর্ক করেছে কিন্তু সে কারো কোন কথাই শুনেনা বরং উল্টো নানান কথা শুনিয়ে দেয় এলাকাবাসীকে। তাই এলাকাবাসীর দাবী যত্রতত্র গড়ে উঠা অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে চা স্টল ও খাবার হোটেল গুলো প্রশাসনিকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হোক।

এব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডাঃ আরিফুল ইসলাম জানান, নিম্নমানের খাবার ও ফুড পয়জন থেকে এটা হতে পারে।