বড়াইগ্রামে ৮ মাসের অন্ত:সত্বা গৃহবধু হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন

অপরাধ

নিজস্ব প্রতিনিধি : নাটোরের বড়াইগ্রামে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ শাহীনুর খাতুনকে গলা কেটে হত্যার আসামী মতিউর রহমানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ, এ খবর সংশ্লিষ্ট একটি সুত্রের।

শুক্রবার (১১ জুন) বেলা এগারোটার দিকে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক যুবায়ের।

তিনি আরো জানান, পরকীয়ার জন্যে ঘৃণা ও ক্ষোভে বশীভূত হয়ে প্রতিশোধ থেকে এই হত্যাকান্ড ঘটেছে বলে তদন্তে উঠে এসেছে। হত্যাকান্ডের শিকার শাহিনুর খাতুনের স্বামী রাশিদুল ইসলাম অভিযুক্ত হত্যাকারী মতিউরের স্ত্রী আছমা খাতুনকে নিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এরই জেরে প্রতিশোধ নিতেই ৩ জুন রাত ১২ টার দিকে মতিউর তার গরুর ঘাসকাটা হাসুয়া নিয়ে রাশেদের বাড়িতে যায়।

এ সময় বাড়ীর পাশে মাদারের বৈঠকি গান চলছিলো। পরিবারের অন্যন্য সদস্যরা তখন সেখানে ছিলো। এ সুযোগে মতিউর কৌশলে ঘরের দরজা খুলে ঘরে প্রবেশ করে ঘুমন্ত অবস্থায় ৮ মাসের গর্ভবতী শাহিনুর খাতুনকে হাসুয়া দিয়ে জবাই করে।

শাহিনুরের মৃত্যু নিশ্চিত করার জন্য তার ২ পায়ের রগ কেটে দেয়। তদন্তে সম্পৃক্ততা পেয়ে প্রাপ্ত তথ্যাদি ও আধুনিক প্রযুক্তির সহায়তায় এই হত্যা কাণ্ডের সাথে জড়িত মতিউর রহমানকে তার নিজ বাড়ি উপজেলার ভবানীপুর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে নাটোর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।