এবার তরুণরাও আক্রান্ত

এইমাত্র জাতীয় জীবন-যাপন সারাদেশ সাস্থ্য

স্বাস্থ্যর মহাপরিচালকসহ কয়েকজন পজেটিভ
সংক্রমণ বাড়লেও সতর্কতা মানছে না কেউ
স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে মাঠে নামছে পুলিশ
করোনায় আক্রান্ত ২২ ভাগ সংসদ সদস্য

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস এবার স্বাস্থ্য অধিদফতরে হানা দিয়েছে। অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. খুরশীদ আলমসহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী এ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন। শনিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ রোবেদ আমিন গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ডা. মোহাম্মদ রোবেদ আমিন জানান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন ডিরেক্টর (ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম) ডা. মিজানুর রহমানও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দুই তিন দিন আগে তার করোনা শনাক্ত হয়। এখন তিনি বাসায় আইসোলেশেনে আছেন। তবে করোনায় আক্রান্ত অন্য কারো নাম তিনি জানাননি।
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল বাশার খুরশীদ আলম ও অধিদফতরের লাইন ডিরেক্টর মিজানুর রহমানসহ চার থেকে পাঁচজন আক্রান্ত হয়েছেন। তারা সবাই ভালো আছেন, কারো মধ্যে জটিল কোনো লক্ষণ বা উপসর্গ নেই।
এদিকে দেশে করোনার সংক্রমণ আবার বাড়ছে। মাঝে বেশ কয়েক মাস শনাক্ত ও মৃত্যুর হার কমতির দিকে থাকলেও এখন আবার ঊর্ধ্বমুখী। অবস্থা ভয়ংকর আকার ধারণ করলেও বিশেষজ্ঞদের সতর্কতা মানছেন না অনেকেই।
কয়েকদিন ধরে আবার করোনা শনাক্তের হার বাড়ছে। গত শুক্রবার সেটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০.০৪ শতাংশে। হাসপাতালের আইসিইউগুলোতে করোনা রোগীতে পূর্ণ প্রায়।
কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে বিভাগীয় কমিশনার, ডিসি ও ইউএনওদের চিঠি দেওয়া হয়েছে। আজ থেকে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে মাঠে নামছে পুলিশ। সারা দেশের সকল হাসপাতালকে প্রস্তুত রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, নতুন করে এখন যারা আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের বেশিরভাগই তরুণ, তাদের বেশিরভাগেরই আইসিইউ লাগছে।
তিনি বলেন, গত দুই মাস আমরা স্বস্তিতে ছিলাম, তাই এখন আমরা কোনো কিছু মানছি না। সামনের দিকে আরো বড় ধরনের বিপদে পড়তে যাচ্ছি, যদি আমরা স্বাস্থ্যবিধি না মানি।
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় দেশের সব হাসপাতালকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এরই মধ্যে প্রশাসনসহ সিভিল সার্জন অফিসগুলোতে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সারা দেশে আইসিইউগুলো প্রস্তুত রাখতে বলা হয়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, সারা দেশে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৫৫৮টি। তার মধ্যে রোগী ভর্তি আছেন ২৮৬ জন, বাকি ২৭২টি শয্যা খালি রয়েছে। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা ডেডিকেটেড ১০টি সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ রয়েছে ১১৭টি, তার মধ্যে রোগী ভর্তি আছেন ৮৮ জন আর ফাঁকা রয়েছে ২৯টি। অপরদিকে, বেসরকারি ৯টি হাসপাতালের ২৮১টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে রোগী আছেন ২০১ জন আর শয্যা ফাঁকা রয়েছে ৮০টি।
গতকাল দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮ হাজার ৬৬৮ জনে। গতকাল মৃত্যু হয়েছিল ১৮ জনের। এদিন নতুন করে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে আরো এক হাজার ৮৬৮ জনের দেহে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্ত হলো ৫ লাখ ৬৮ হাজার ৭১৮ জন করোনা রোগী। এদিকে গতকাল আক্রান্ত হয়েছিল এক হাজার ৮৯৯ জন।
শনিবার বিকেলে করোনাভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯ হাজার ৯০০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়।
দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত (কোভিড-১৯) প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। তার ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।
রাজধানীর বেসরকারি এভার কেয়ার হাসপাতালের স্পেশালিস্ট রেজিস্ট্রার ডা. নাকিব শাহ আলম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন, আপনারা হয়তো টের পাননি বা খবর রাখেননি। করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত আইসিইউগুলো কিন্তু আবারো ভরে গিয়েছে। অনেকদিন ফোন আসেনি আইসিইউ বেডের খোঁজের জন্য; কিন্তু আবারো সেটা শুরু হয়েছে। সবাই একটু সতর্ক হোন। একই কথা লিখেছেন ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালের ভ্যাস্কুলার সার্জন ডা. সাকলায়েন রাসেল।
ফেসবুকে তিনি লিখেন, এর কাছ থেকে ওর কাছ থেকে ফোন আসছে। হাসপাতাল লাগবে, বেড লাগবে, আইসিইউ লাগবে। আপনজনের মৃত্যুর খবরগুলো বাড়ছে, কারণ একটাই করোনা! খালি হয়ে যাওয়া হাসপাতালগুলো আবারো ভরে উঠছে! সিট সংকট শুরু হয়েছে ইতোমধ্যে। আমাদের মনে হয় আরেকটু সতর্ক হওয়া প্রয়োজন!
গত অক্টোবর-নভেম্বরে যে পরিমাণ রোগী ছিল তার দ্বিগুণ রোগী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে ভর্তি বলে জানান হাসপাতালের মেডিসিন ও ইনফেকশাস ডিজিজ বিশেষজ্ঞ ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাছান চৌধুরী মারুফ।
নতুন সংক্রমণে জটিলতা বেশি কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এজন্য গবেষণা প্রয়োজন। তবে অনেক রোগী পাচ্ছি যাদের অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে বেশি। আর করোনায় আক্রান্ত রোগী যাদের অক্সিজেন প্রয়োজন হয়, তাদেরই আমরা সিভিয়ার রোগী হিসেবে বিবেচনা করি। একই সঙ্গে তরুণ রোগী বেশি পাচ্ছি এবার।
ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাছান চৌধুরী মারুফ বলেন, প্রথমবারের সংক্রমণের সময় দেখেছি, ধীরে ধীরে সংক্রমণের হার বেড়েছে, ধীরগতিতে নেমেছে। কিন্তু এবারের সংক্রমণ একটা শার্প রাইজ হচ্ছে। শার্প রাইজ মানে হচ্ছে এর ট্রান্সমিশন খুব দ্রুত হচ্ছে। আইসিইউর জন্য এখন ফোন কল বাড়ছে এখন বলেন ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাছান চৌধুরী।
ঢাকা মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. নুসরাত সুলতানা বলেন, আক্রান্তের হার খুব দ্রুত বাড়ছে। ঢাকা মেডিকেলের ভাইরোলজি বিভাগের ল্যাবে আক্রান্তের হার ২৬ শতাংশ। তাদের মধ্যে নন-কোভিড ইউনিটে কাজ করা মেডিকেল শিক্ষার্থীরা রয়েছেন। আর আক্রান্তের হারের পাশাপাশি সিভিয়ার রোগীর সংখ্যাও বেশি। এবারের স্ট্রেইনটি মারাত্মক সংক্রামকই শুধু নয়, বিপজ্জনকও বটে। এটি বিদ্যুৎগতিতে আগের স্ট্রেইনটিকে প্রতিস্থাপন করবে।
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. জাহিদুর রহমান বলেন, নতুন ভেরিয়েন্ট মানেই বেশি বিপজ্জনক, বেশি সংক্রামক, বেশি মৃত্যু। হাসপাতালে যারা যাচ্ছেন তাদের বেশিরভাগেরই আইসিইউ লাগছে কারণ অবস্থা খারাপ না হলে মানুষ হাসপাতালে আসছে না।
এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে হলে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বিকল্প নেই জানিয়ে ডা. জাহিদুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানলে সবাই ভালো থাকবেন। নো মাস্ক নো সার্ভিসের পর যেমন সংক্রমণ কমে এসেছিল, সেভাবে আবারো চেষ্টা করা দরকার।
করোনায় আক্রান্ত ও করোনার উপসর্গের রোগী লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মন্তব্য করে জনস্বাস্থ্যবিদ ও প্রিভেনটিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, হাসপাতালে খালি শয্যা পাওয়া যাচ্ছে না। অধিকাংশ আইসিইউতে বেড নেই। মহাদুর্যোগ দরজায় আবার কড়া নাড়ছে।
পরিস্থিতি মোকাবিলার প্রধান অস্ত্র হলো, মাস্ক পরা, স্বাস্থ্যবিধি মানা এবং করোনার টিকা নেওয়া। নয়তো প্রতিটি অবহেলার দায় শোধ করতে হতে পারে। দেশের কোভিড ডেডিকেটেড অন্যতম হাসপাতাল কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল। এই হাসপাতালের আইসিইউ কখনোই শূন্য থাকেনি, তবে রোগীদের ওয়েটিং লিস্ট (অপেক্ষমাণ তালিকা) কমে এসেছিল।
এই হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ)-এর প্রধান ডা. শাহজাদ হোসেন মাসুম বলেন, আইসিইউর ওয়েটিং লিস্ট বড় হচ্ছে আর ওয়ার্ডে ভর্তি পিকে চলে গেছে। আমাদের ক্যাপসিটি প্রায় আমরা ক্রস করে চলে গেছি। আগে আমরা আইসিইউ থেকে অনেক রোগীকে কেবিনে স্থানান্তর করতে পারতাম অর্থাৎ তারা সুস্থ হতেন, ভালোর দিকে যেতেন; কিন্তু এখন রোগীরা খারাপ হয়ে যাচ্ছে বেশি বলেন তিনি।
বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্বের ১২ কোটি ২৮ লাখ ৯৮ হাজার ৬৮৯ জন মানুষ। এর মধ্যে মারা গেছেন ২৭ লাখ ১৩ হাজার ৫৮০ জন। আর স্বস্তির খবর এই যে, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়েছেন ৯ কোটি ৯০ লাখ ৪৭ হাজার ৮১২ জন।
শনিবার সকালে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন তিন কোটি ৪ লাখ ২৫ হাজার ৭৮৭ জন। মৃত্যু হয়েছে পাঁচ লাখ ৫৪ হাজার ১০৪ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ২৬ লাখ ১০ হাজার ৩২৫ জন।
আক্রান্তে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে সংক্রমিত হয়েছেন এক কোটি ১৮ লাখ ৭৭ হাজার ৯ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে দুই লাখ ৯০ হাজার ৫২৫ জনের। তবে ১ কোটি ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৪৬০ জন সুস্থ হয়েছেন।
আক্রান্তে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন ১ কোটি ১৫ লাখ ৫৫ হাজার ২৮৪ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন এক লাখ ৫৯ হাজার ৫৯৪ জন। আর সুস্থ হয়েছেন এক কোটি ১১ লাখ ৭ হাজার ৩৩২ জন।
এদিকে রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৪ লাখ ৩৭ হাজার ৯৩৮ জন। ভাইরাসটিতে মারা গেছেন ৯৪ হাজার ২৬৭ জন। এরই মধ্যে ৪০ লাখ ৪৯ হাজার ৩৭৩ জন সুস্থ হয়েছেন।
যুক্তরাজ্যে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৪২ লাখ ৮৫ হাজার ৬৮৪ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন এক লাখ ২৬ হাজার ২৬ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ৩৬ লাখ ২১ হাজার ৪৯৩ জন।
উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস বিশ্বের দুই শতাধিক দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে।
করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২২ ভাগ সংসদ সদস্য:
দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ বাড়তি সতর্কতা গ্রহণ করেন সংসদ সদস্যরা। সামাজিক দূরত্ব মানার কারণে অনেকে নির্বাচনী এলাকাতেও যাননি। এরপরও সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ৭৫ জন এমপি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
জাতীয় সংসদের (সংরক্ষিত নারী আসনসহ ৩৫০ আসন) প্রায় (২২ শতাংশ) সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন চারজন। অপরদিকে সরকারের মন্ত্রিসভার ৪৮ সদস্যের মধ্যে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ জন। তাদের মধ্যে একজন প্রতিমন্ত্রী মারা গেছেন।
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, জনপ্রতিনিধি হিসেবে দুর্যোগকালে তাদের ঘরে বসে থাকার সুযোগ ছিল না। তাই জনগণের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে তাদের বেশি সংখ্যক সহকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। তবে বেশিরভাগ এমপির করোনা পজিটিভ হওয়ার পেছনে একাধিকবার পরীক্ষা করার কথাও উল্লেখ করেছেন তারা।
সংসদ সদস্যদের মধ্যে প্রথম করোনা আক্রান্ত হন নওগাঁ-২ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য শহীদুজ্জামান সরকার। দেশে করোনা সংক্রমণের ৫২ দিনের মধ্যে ৩০ এপ্রিল তার শরীরে ভাইরাস ধরা পড়ে। মন্ত্রিসভার সদস্যদের মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং প্রথম করোনা আক্রান্ত হন।
সংসদ সদস্যদের মধ্যে সিরাজগঞ্জ-১ আসনের মোহাম্মদ নাসিম এবং নওগাঁ-৬ আসনের ইসরাফিল আলম মারা গেছেন। ১০ জুলাই সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (ঢাকা-১৮) ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এছাড়াও করোনায় আক্রান্ত হয়ে সর্বশেষ সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী ১১ মার্চ বৃহস্পতিবার ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মো. জিল্লুল হাকিম বলেন, সংসদ সদস্যদের বেশি আক্রান্ত হবার কারণ করোনার ভয়াবহ সময়েও তারা মানুষের পাশে থেকেছে। লকডাউনের সময় সব মানুষ যখন গৃহবন্দি, তখন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমরা বসে থাকতে পারিনি। তাদের ত্রাণ ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হয়েছে। জনগণের পাশে দাঁড়াতে হয়েছে।
করোনায় সাবেক সংসদ সদস্যদের মৃত্যু:
করোনায় সাবেক অনেক সংসদ সদস্যদের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে অনেক সংসদ সদস্যদের তালিকা হয়নি। সংসদ সদস্যদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত বগুড়া-জয়পুরহাট জেলার সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য কামরুন্নাহার পুতুল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৩ মে মারা যান। আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক সাংসদ হাজি মকবুল হোসেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৬ জুন মারা যান। করোনায় সংক্রমিত হয়ে ১৪ নভেম্বর রাজশাহী-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আবু হেনা মারা যান। এছাড়াও ২০ ডিসেম্বর মারা যান মানিকগঞ্জ-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য সামসুদ্দিন আহমেদ। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য, সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২৪ ডিসেম্বর মারা যান।
দেখা গেছে, ৩০ এপ্রিল নওগাঁ-২ আসনের শহীদুজ্জামান সরকার আক্রান্ত হওয়ার পর ১৬ মে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের এবাদুল করিমের করোনা শনাক্ত হয়। জুনে তিন মন্ত্রী ও এক প্রতিমন্ত্রীসহ ১৬ জন এমপি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। সরকারি দলের এমপি ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজারও ওই সময় করোনা হয়।
এই মাসে সাবেক মন্ত্রী সিরাজগঞ্জ-১ আসনের মোহাম্মদ নাসিম, গোপালগঞ্জ-৪ আসনের মুহম্মদ ফারুক খান, ফরিদপুর-৩ আসনের ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী গাজীপুর-১ আসনের আ ক ম মোজাম্মেল হক, বাণিজ্যমন্ত্রী রংপুর-৪ আসনের টিপু মুনশি, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং, সাবেক চিফ হুইপ ও মৌলভীবাজার-৪ আসনের উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ, যশোর-৪ আসনের রণজিৎ কুমার রায়, জামালপুর-২ আসনের ফরিদুল হক খান (বর্তমানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী), চট্টগ্রাম-৮ আসনের মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম-১৬ আসনের মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, সিলেট-২ আসনের মোকাব্বির খান, নড়াইল-২ আসনের মাশরাফি বিন মুর্তজা, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বরিশাল-৫ আসনের জাহিদ ফারুক, রাজশাহী-৪ আসনের এনামুল হক এবং সংরক্ষিত আসনের ২৫ জুন ফেরদৌসী ইসলাম জেসির করোনা পজিটিভ হয়।
এদের মধ্যে মোহম্মদ নাসিম ১৩ জুন মারা যান। একই দিনে করোনায় মারা যান ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মুহম্মদ আবদুল্লাহ।
জুলাইতে করোনা আক্রান্ত হন নওগাঁ-৬ আসনের ইসরাফিল আলম, সিরাজগঞ্জ-৫ আব্দুল মমিন মন্ডল, নওগাঁ ৩-এর ছলিম উদ্দিন তরফদার, সাতক্ষীরা-২ আসনের মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, টাঙ্গাইল-৮ আসনের জোয়াহেরুল ইসলাম ও কুড়িগ্রাম-৩ আসনের এম এ মতিন।
এদের মধ্যে ইসরাফিল আলম ২৭ জুলাই মারা যান।
আগস্ট মাসে এক মন্ত্রীসহ ১১ জন এমপি করোনায় আক্রান্ত হন। তারা হলেন- মৌলভীবাজার-১ আসনের এমপি পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, চট্টগ্রাম-৬ আসনের এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, বিএনপির সংরক্ষিত আসনের রুমিন ফারহানা, সংরক্ষিত আসনের সালমা চৌধুরী, ঠাকুরগাঁও-১ রমেশ চন্দ্র সেন, ঠাকুরগাঁও-২ আসনের দবিরুল ইসলাম, রাজশাহী-৫ আসনের মনসুর রহমান, টাঙ্গাইল-৭ আসনের মো. একাব্বর হোসেন, পটুয়াখালী-৩ আসনের এস এম শাহজাদা, মেহেরপুর-২ আসনের মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান ও কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নুর মোহাম্মদ।
সেপ্টেম্বর মাসে আক্রান্ত হন দিনাজপুর-২ আসনের এমপি নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, খুলনা-৬ আসনের আক্তারুজ্জামান বাবু, টাঙ্গাইল-২ আসনের ছোট মনির, শেরপুর-১ আসনের এমপি হুইপ আতিউর রহমান আতিক ও বরিশাল-৪ আসনের সংসদ সদস্য পংকজ নাথ।
অক্টোবর মাসে কয়েকদিন জ্বরে ভোগার কারণে ১১ অক্টোবর কোভিড-১৯ সংক্রমণ শনাক্তকরণের জন্য নমুনা দেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ১৩ অক্টোবর পরিকল্পনামন্ত্রীর কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার পরে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়। ১৬ অক্টোবর উপসর্গ দেখা দেয়ায় তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীন রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) নমুনা পরীক্ষা করান। একই দিন তিনি চিকিৎসকদের পরামর্শে ভর্তি হন রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানেই তিনি জানতে পারেন কোভিড-১৯ সংক্রমণ শনাক্তের বিষয়ে। ১০ অক্টোবর কোভিড-১৯ সংক্রমণ শনাক্ত হয় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনের। পরবর্তীতে চিকিৎসকের পরামর্শে হোম আইসোলেশন পর্ব পার করে ৩০ অক্টোবর নমুনা পরীক্ষা করতে দেন। এদিন তার মাঝে আর কোভিড-১৯ সংক্রমণ পাওয়া যায়নি।
এছাড়াও হবিগঞ্জ-৩ আসনের মো. আবু জাহির এবং ফেনী-৩ আসনের জাতীয় পার্টির মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী।
নভেম্বরে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক এমপি করোনায় আক্রান্ত হন। এ মাসে তিন মন্ত্রী, দুই প্রতিমন্ত্রী, একজন উপমন্ত্রী ও একজন হুইপসহ ২৩ জন এমপি আক্রান্ত হন। আক্রান্তরা হলেন- বাগেরহাট-১ আসনের শেখ হেলাল উদ্দীন, টাঙ্গাইল-৫ (সদর) ছানোয়ার হোসেন, ঢাকা-১০ আসনের শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, পাবনা-৪ আসনের নুরুজ্জামান বিশ্বাস, নওগাঁ-২ আসনের শহীদুজ্জামান সরকার, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, পাবনা-৩ আসনের মকবুল হোসেন, ঢাকা-১৩ আসনের সাদেক খান, সিলেট-৪ আসনের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের মুজিবুল হক চুন্নু, লালমনিরহাট-১ আসনের মোতাহার হোসেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা-১২ আসনের আসাদুজ্জামান খান কামাল, বগুড়া-৩ আসনের নুরুল ইসলাম তালুকদার, ঢাকা-১৭ আসনের আকবর হেসেন পাঠান (নায়ক ফারুক), গাজীপুর-২ আসনের এমপি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, কুষ্টিয়া-৩ আসনের মাহবুব উল আলম হানিফ, ঝিনাইদহ-৩ আসনের শফিকুল আজম খান চঞ্চল, পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিলেট-১ আসনের ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী রাজশাহী-৬ শহারিয়ার আলম, জাতীয় সংসদের হুইপ জয়পুরহাট-২ আসনের আবু সাঈদ আল মাহমুদ (স্বপন), বিএনপির এমপি ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান এবং সংরক্ষিত নারী আসনের নাদিরা ইয়াসমিন জলি ও তাহমিনা বেগম কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হন।
ডিসেম্বর মাসে শিক্ষামন্ত্রী ও চাদঁপুর-৩ আসনের এমপি ডা. দীপু মনিসহ আট জন এমপির করোনা ধরা পড়ে। অন্যরা হলেন- নীলফামারী-২ আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর, সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও সিলেট-৬ আসনের নুরুল ইসলাম নাহিদ, মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, বগুড়া-১ সাহাদারা মান্নান, চট্টগ্রাম-১২ আসনের সংসদ সদস্য হুইপ সামশুল হক চৌধুরী ও পাবনা-৫ আসনের গোলাম ফারুক প্রিন্স।
এছাড়াও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি।
জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, করোনাকালীন আমাদের অনেক সংসদ সদস্যই আক্রান্ত হয়েছেন। জনপ্রতিনিধিদের কাছে তাদের জনগণই শক্তি। তবে সবাইকে সচেতন থেকেই কাজ করতে হবে। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার তথ্য সবাই দেয় না।
তিনি বলেন, আমিও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলাম। সেটা অনেকেই জানে না।
জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আরো বলেন, সদস্যদের কোনো লক্ষ্মণ বা উপসর্গ দেখা গেলেই নমুনা পরীক্ষার পরামর্শ দেয়া হয়েছে এবং প্রয়োজনে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এছাড়াও অসুস্থ এবং বয়স্ক সংসদ সদস্যদের সংসদে না আসার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।
আইইডিসিআরের উপদেষ্টা ডা. মোস্তাক আহমেদ বলেন, সংসদ সদস্যরা বেশি মানুষের সংস্পর্শে যাওয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন এটা সত্য। তবে, এর পেছনে বড় কারণ হচ্ছে নমুনা পরীক্ষা। দেশের সব এমপিদের একাধিকবার নমুনা পরীক্ষা করাতে হয়েছে। সংসদ অধিবেশনে যোগ দেয়ার কারণে কোনো উপসর্গ ছাড়াই তাদের নমুনা পরীক্ষা করাতে হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কোনো অনুষ্ঠানে যোগ দিতেও পরীক্ষা করাতে হয়েছে। যার কারণে তাদের মধ্যে বেশি পজিটিভ পাওয়া গেছে।
এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, সংসদ সদস্যসহ সবাইকেই মূল গুরুত্ব দিতে হবে স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপরে এবং সেটি শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। তাই মাস্ক পরতে হবে এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে এবং কর্মীদেরও সচেতন করতে হবে।