ইউনানী আয়ুর্বেদিক বোর্ড এর নির্বাচন ও কিছু কথা

সাস্থ্য

আজকের দেশ রিপোর্ট : দেশীয় চিকিৎসার উন্নয়নে যার জন্ম সেই বোর্ডের নির্বাচন আসন্ন। এই নির্বাচন ঘিরে চলছে ব্যাপক প্রচারণা। এটি একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান।
এর সদস্য নির্বাচিত হলে কেউ দূর্নীতি করে টাকা পয়সা লুটপাট করবে এমনটি ভাবার অবকাশ নেই। কিন্তু তবুও সদস্য প্রার্থীদের ব্যাপক প্রচার প্রচারণা, ইনভেস্ট করার কারন কি? ইদানিং দেখতেছি অনেক প্রার্থী সোশাল মিডিয়া বিভিন্ন ব্যানার ফেস্টুন প্রচার করে সয়লাব। আবার কেউ কেউ নিজের বিস্তারিত ইতিহাস লিখে ৩-৪ পৃষ্ঠার ক্যাটালগ তৈরি করে দেশের আনাচে কানাচে বিলাচ্ছে। আসলে এদের উদ্দেশ্য কি? আপনারা কি বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত হতে এতো প্রচার, এত খরচ, এতো সময় ব্যয় করার প্রয়োজন আছে?
একটা জিনিস লক্ষ করেছেন যে অধিকাংশ প্রার্থী বিভিন্ন ইউনানী/ আয়ুর্বেদিক ঔষধ কোম্পানির মালিক।
অধিকাংশ প্রার্থীর উদ্দেশ্যঃ
তিনি চান সদস্য হয়ে তার ঔষধ বোর্ড হতে পাশকৃত বিভিন্ন চিকিৎসকের মাধ্যমে বিক্রি করবে।
কেউ কেউ চায় বি-ক্যাটাগরি, বংশপরম্পরায় ফুটপাতে ঔষধ বিক্রি করা হকারদের কাছে তার কোম্পানির ঔষধ বিক্রি করবেন।
কেউ কেউ চায় বংশপরম্পরায় ফুটপাতে ঔষধ বিক্রি করা হকারদের সংখ্যা বৃদ্ধি করে তার ব্যাবসা বাড়াতে।
কেউ কেউ চায় এই সিস্টেম যেন তার নিয়ন্ত্রণে থাকে।
কেউ কেউ চায় তার নিজের মত করে বোর্ড পরিচালনা করবে।
কেউ কেউ তার ইউনিভার্সিটির জন্য বিভিন্ন সুবিধা নেয়া ইত্যাদির জন্য।

ইতিপূর্বে তো তারাই বোর্ড নিয়ন্ত্রণ করলো, তারা যেভাবে নাচাতে চাইলে নাচালো, নিজের মত সুবিধা নিল কিন্তু সিস্টেমের উন্নয়নে কি করলে?
এতো গুলো ডিইউএমএস/ডিএএমএস চিকিৎসক বের করে কতজনকে সরকারী চাকুরি দিলো??? একটা সিস্টেম যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য প্রয়োজন গবেষণা, উদ্ভাবনী চিন্তাধারা, নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার। কিন্তু তারা কি করলো?
সময় এসেছে তাদের দীর্ঘদিনের শোষণ, নিপীড়ন ও উৎপীড়নের জবার দেয়ার।
সিদ্ধান্ত আপনার হাতে। যারা ইউনানী, আয়ুর্বেদিক সিস্টেমকে আরো পিছনের দিকে নিয়ে যেতে চায় আপনি তাদের পক্ষে নাকি যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে নিতে চাওয়াদের পক্ষে?
তবে ভোট যাই হোক যারা বর্তমান বোর্ড নিয়ন্ত্রণ করছে কতিপয় কোম্পানির মালিক ও হকার সম্প্রদায় তাদের হাতে কতটা স্বচ্ছ হবে নির্বাচন সেটাই প্রশ্ন।