প্রেমের ফাঁদে ফেলে পর্ণোগ্রাফী ভিডিও তৈরী প্রতারক বেনজীরের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

অপরাধ সারাদেশ

মো:রফিকুল ইসলাম, নড়াইল: নড়াইল সহ দেশের বিভিন্ন সুনন্দোরী মেয়েদের কে প্রেমের ফাঁদে ফেলে নিজে পর্ণোগ্রাফী ভিডিও করে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায় করে, প্রতারক বেনজীরের বিচারের দাবিতে মির্জাপুর এলাকাবাসীর মানববন্ধন।
প্রতারক বেনজীর আহম্মেদের বিরুদ্ধে বেনজীরের নিজ গ্রাম মির্জাপুর বাজারে প্রতারনা, মাদক ব্যবসাসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্য ও বেনজীরের অপকর্মের প্রতিবাদ করলে হামলা মামলার শিকার হতে হয়েছে এলাকার একাধীক ব্যক্তির তারই প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এ মানববন্ধনে শত শত সাধারণ মানুষ উপস্থিত হয়ে ধুর্ত মাদক ব্যবসায়ী ও মানব পাচারকারী বেনজীরের বিচারের দাবি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সহ নড়াইল পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এলাকাবাসী।
আজ (১৭ সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ ঘটিকার সময় নড়াইলের মির্জাপুর বাজারে শত শত গ্রামবাসীর উপস্থীতিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এসময় মানববন্ধনে উপস্থিত নেতা কর্মি সহ এলাকাবাসী তাদের বক্তব্যে বলেন,বেনজীর একজন নামধারী প্রতারক একজন মাদক ব্যবসায়ী ও বিভিন্য প্রশাষনের কর্মজিবী অফিসারদের নাম ভাঙীয়ে মির্জাপুর সহ নড়াইল জেলার সুনন্দোরী মেয়েদের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তাদের সাথে গোপঁনে নিজের ড্রাইভার দিয়ে পর্ণোগ্রাফীর ভিডিও করে ভিডিও তৈরী করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে আজ কটিপতি বনে গেছেন।
এপ্রতারণার বিষয়ে কেউ কিছু বলতে গেলে তাদের উপর চালায়,সন্ত্রাসী কর্মকান্ড,ভয়ে কেউ মূখ খলতে সাহস পায় না।
উক্ত মানববন্ধনে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বশিক্ষক ব্যবসায়ী সহ এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অংশগ্রহন ও বক্তব্য প্রদান করেন।
মানববন্ধনে বক্তব্য প্রদানকালে মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের সহকারী অধ্যাপক শেখ আকিদুল ইসলাম বলেন,নড়াইল জেলার সদর থানাধীন মির্জাপুর গ্রামে মো:বেনজীর আহম্মেদ মোল্যা নামের এই ব্যক্তি একজন অশ্লীল পর্ণোগ্রাফী ভিডিও ব্যবসায়ী চক্রের হোতা।
সে নানা সময়ে নানা অপকর্মের মধ্য দিয়ে সুনন্দোরী মেয়েদের সাথে নিজের অশ্লীল-উলঙ্গ যৌন ভিডিও তৈরি করে,আবার নিজেই তার ব্যবসা করে লম্পট বেনজীর আহম্মেদ মোল্যা আজ কোটিপতি সহ বহু সম্পদের মালিক হয়েছে।
মির্জাপুর বাজার বণিক সমিতি সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ মানোয়ার হোসেন একই অভিযোগ করে বলেন, বেনজীর একজন ধুরন্ধর লম্পট,তার জন্য সুনামধন্য মির্জাপুরের সুনাম আজ ক্ষুন্ন হতে চলেছে,তিনি বেনজীর মোল্যার শাস্তির দাবী করেন।
এলাকার সামাজিক ব্যক্তিত্ব শেখ উজ্জল বলেন, আমরা বেনজীর মোল্যার অপকর্মের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে এই মানববন্ধনের আয়োজন করেছি।
শত শত গ্রামবাসীর স্বাক্ষরিত তার বিরুদ্ধে বহু অপকর্মের অভিযোগ বর্তমানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়, আইজিপি ও দূর্নীতি দমন কমিশনে পাঠিয়েছি।
আমরা শুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে লোমহর্ষক সব ঘটনার জন্মদাতা এই কুলাঙ্গার বেনজীরের গ্রেফতার ও শাস্তি দাবী করছি।
মানববন্ধনে এলাকাবাসীর সাথে,শেখ পারভেজ আলম বলেন, মির্জাপুর একটি স্বনামধন্য গ্রাম, এখানে শিক্ষার হার বেশি ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের জন্মস্থান হলেও এই গ্রামটি বর্তমানে বেনজীর মোল্যা নামে এক লম্পট-কুলাঙ্গারের কর্মকান্ডের কারণে গ্রামটির সুনাম আজ হারিয়ে যেতে বসেছে।
এই মির্জাপুরের বেনজীর মোল্যা বর্তমানে এক আতঙ্কের নাম।
বেনজীর মোল্যা বর্তমানে এলাকার এক লম্পট, চরিত্রহীন ধুরন্ধর, কু-প্রবৃত্তির অধীকারী, মিথ্যা মামলাবাজ ও এলাকায় ত্রাস সৃষ্টিকারীর নাম।
তার কু-কীর্তি ও অপকর্মের বিরুদ্ধে মুখ খুললে বা প্রতিবাদ করলে নিরীহ গ্রামবাসীদের হতে হয় মিথ্যা মামলায় হয়রানীর শিকার।
এই ভয়ে আর আতঙ্কে মুখ খুলতে সাহস পাইনি অনেকেই।
মানববন্ধনে অন্যান্য বক্তারা বলেন,বর্তমানে অবৈধ আয়ে কোটি কোটি টাকা,অগাধ সম্পত্তি ও আলীশান বাড়ীসহ বিলাসবহুল জীবন-যাঁপন কু-কীর্তিতে ভরা বেনজীর মোল্যা একজন নারীলোভী দালাল প্রকৃতির লোক।
ভারতে নারি পাচার করে,সে ইতিপূর্বে চুরির দায়ে দোষি সাব্যস্ত হয়ে সরকারী সামরিক বাহিনী থেকে চাকুরীচ্যুত হয়।
উক্ত বেনজীর মোল্যা বিভিন্ন অফিসের দালালী শুরু করে আয়ের উৎস পরিবর্তন করেছে।
বেছে নেয় আরো ঘৃণ্য পথ বিভিন্ন সুনন্দোরী মেয়েদের সাথে সম্পর্ক স্থাপঁন করে সু-কৌশলে নিজেই নিজের আপত্তিকর যৌন ভিডিও নিজ ড্রাইভার দদিয়ে ধারণ সহ ভিডিও তৈরি করে তাদের পরিবারকে জিম্মি করে হাতিয়ে নেয় লক্ষ লক্ষ টাকা।
যশোরে আর মির্জাপুরে গড়ে তোলে নামে-বেনামে অবৈধ সম্পত্তি ও একাধিক আলীশান বাড়ি।
মানববন্ধনে বেনজীর আহম্মেদ মোল্যার বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন সহ তাকে গ্রেফতারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সহ নড়াইল জেলা পুলিশ সুপারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এলাকাবাসী।
এদিকে মানববন্ধনে উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, গত (১৫ সেপ্টেম্বর) ফুলতলা প্রতিদিন পত্রিকায় “নড়াইলের মির্জাপুরে প্রশাসনের চোঁখ কে ফাঁকি দিয়ে নিজের তৈরি অশ্লীল পর্ণোগ্রাফী ভিডিও ব্যবসায় করে কোটিপতি বেনজীর” শীর্ষক সংবাদ প্রকাশ করা হয়।
উক্ত সংবাদের জের ধরে পর্ণোগ্রাফী ভিডিও ব্যবসায়ী বেনজীর আহম্মেদ মোল্যা কর্তৃক ফুলতলা প্রতিদিন পত্রিকার প্রধান সম্পাদক খন্দকার আছিফুর রহমানকে মোবাইল ফোনে হামলা ও মামলার হুমকি প্রদান করে।
এদিকে,নড়াইল জেলার সদর থানাধীন মির্জাপুর গ্রামে মো:বেনজীর আহম্মেদ মোল্যার নামে অশ্লীল নীল ভিডিও ব্যবসায়ী চক্রের হোতা হিসাবে সন্ধান পাওয়া গেছে।
সে ওই গ্রামের জামির মোল্যার ছেলে।
“কথায় আছে, চোরে না শোনে ধর্মের কাহিনী” উক্ত লম্পট বেনজীর আহম্মেদ মোল্যার পিতা জামির হোসেন মোল্যা বিগত দিনে শিক্ষার্থীদের টিউশনি করে জীবন-যাঁপন করলেও তার বড় ছেলেটি ছিলো বিচিত্র চরিত্রের।
অপকর্ম আর অপকর্মের মধ্য দিয়ে তার জীবন পরিচালিত হতে থাকলেও বর্তমান সময়ে সুনন্দোরী মেয়েদের সাথে প্রমোজ সম্পর্ক গড়ে নিজের অশ্লীল-উলঙ্গ যৌন ভিডিও তৈরি সহ আবার নিজেই তার ব্যবসা করে লম্পট বেনজীর আহম্মেদ মোল্যা।
অল্পদিনের মদ্ধেই আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে মির্জাপুরে কোটিপতি সহ বহু বিত্ত-বৈভবের মালিক বনে গেছেন,মানুষ কে মানুষ মনে করছে না