আপনার পাঠানো ছবি, ভিডিও আপনার বিপদের কারণ হতে পারে

অপরাধ

নিজস্ব প্রতিনিধি : ফেইক আইডি থেকে প্রথমে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট আসে ভিকটিম আকাশের(ছদ্ম নাম) কাছে। সুন্দরী মডেল একজন মেয়ের ছবি প্রোফাইল পিকচার হিসেবে ব্যবহার করে আইডি এর ব্যবহারকারী যেন সহজে সবাইকে প্রলুব্ধ করতে পারে। তারপর ৬-৭ দিন পর মেসেঞ্জার এ চ্যাট করতে করতে ভিডিও কল দিয়ে বসে ভিকটিম এর ম্যাসেঞ্জার এ। ভিডিও কল একসেপ্ট করলে ভিকটিম ওপর পাশের মহিলাকে সম্পূর্ণ উলঙ্গ অবস্থায় দেখতে পায়। যদিও ওপর পাশের নারী তার চেহারা না দেখিয়ে সুকৌশলে ভিকটিমকেও বিবস্ত্র হতে বলে। ৬ মিনিটের এই ভিডিও ওই নারী স্ক্রিন রেকর্ডার ব্যবহার করে ধারণ করে। পরবর্তীতে ভিকটিম এর ফেসবুক অনুসন্ধান করে তার বন্ধু, আত্মীয় প্রায় সবার কাছে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠায় যাদের বেশিরভাগ রিকোয়েস্ট একসেপ্ট করে ফেলে। পরবর্তীতে ওই নারী রিকোয়েস্ট একসেপ্ট এর স্ক্রিন শট ভিকটিম কে পাঠিয়ে বলে , ১ ঘন্টার মধ্যে ২৫ হাজার টাকা না পাঠালে উক্ত ভিডিও সবাইকে পাঠিয়ে দিবে। আতংকিত হয়ে ভিকটিম ওই নারীর কথা অনুযায়ী তার প্রেরিত নাম্বারে ২৫ হাজার টাকা সেন্ড করে। এখানেই শেষ হয়নি। প্রতিদিন ফোন দিয়ে জানায় , টাকা শেষ হলেই যেন আবার টাকা পাঠায় আকাশ।

১. বন্ধু নির্বাচনে সচেতন হবেন। চটকদার ছবি দেখেই রিকোয়েস্ট একসেপ্ট করবেন না। ব্যক্তিগত জীবনে চিনবেন না , তাদের থেকে আসা ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট এড়িয়ে চলা উত্তম।

২. চটকদার গ্রূপ এর মেম্বার , বা পেইজ এ সাবস্ক্রাইব করা থেকে বিরত থাকুন। এদের কেও হয়তো আপনাকে টার্গেট করেই সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর মাধ্যমে আপনাকে ব্ল্যাকমেইল করার পন্থা বের করে নিবে।

৩. ব্যক্তিগত ছবি , ভিডিও ধারণ এবং তা যে কোন ধরণের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এর মাধ্যমে পাঠানো থেকে বিরত থাকুন। আপনার পাঠানো ছবি, ভিডিও আপনার বিপদের কারণ হতে পারে।

সাইবার ক্রাইম বিষয়ক সচেতনতায় সাইবার ক্রাইম ডিভিশনের সাথেই থাকুন। নিরাপদ ইন্টারনেট জগৎ বিনির্মানে আপনার সামান্য চেষ্টা, সচেতনতা আমাদের কাজ সহজ করে তোলে।