সুস্পষ্ট করন

বিবিধ

মোজাম্মেল হক : জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও উদ্দেশ্য প্রচার করার জন্য আওয়ামী লীগ ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পূর্বে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গঠন করা হয়েছে।

তাছাড়া আমার নামে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাষ্ট থেকে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন করার জন্য পত্র দেয়া হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুকে শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে ১৯৬৬ সালে আখাউড়া রেলওয়ে স্কুল এসএসসি পড়ার সময় তাঁকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে সিলেট কারাগারে নেয়ার সময় গভীর রাত ১.৩০ মিনিটে তিনি ট্রেনের দরজায় দাঁড়িয়ে ৬ দফার উপর বক্তব্য দেন।১৯৬৬ সাল থেকে আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসরণ করি।

১৯৬৭ সালে জগন্নাথ কলেজে ভর্তি হয়ে মরহুম ভাই সাবেক সংসদ সদস্য এবং সেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও মরহুম রেজা শাহজাহান ভাইয়ের নেতৃত্বে ১৯৬৯ সালের গনঅভ্যুত্থানে যোগদান করি।আমি জগন্নাথ কলেজে ছাত্র লীগের সদস্য ছিলাম।

তখন মিছিলে সাবেক শিল্প ও বানিজ্য মন্ত্রী এবং বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সচিব জনাব তোফায়েল আহমেদ ভাইয়ের সাথে পরিচয় হয়।আমাকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ আমার নামে চিনে।

যেমন সড়ক ও সেতুমন্ত্রী, সফল কৃষি মন্ত্রি ও দেশরত্ন শেখ হাসিনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও আমাকে চিনে কারন আমার শশুড় মরহুম এডভোকেট আফতাব উদদীন ভুঁইয়া এমপি এবং নরসিংদী জেলার মনোনীত গভর্নর ছিলেন তার মেয়ের জামাই আমি।

তাছাড়া ১৯৭৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে গনভবনে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে কথা বলার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল। বাকী অংশ পরে লিখব।জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।